১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, সকাল ৬:১৬

ভুল চিকিৎসায় পঙ্গু হতে বসেছেন মাকুসদা

ফতুল্লা প্রতিনিধিঃ

ফতুল্লার কাশীপুরে ফ্রেন্ডসশীপ হাসপাতাল এন্ড ল্যাব নামের একটি বেসরকারী হাসপাতালের ভুল চিকিৎসায় মাকসুদা নামের এক রোগী পঙ্গু হতে বসেছেন। রোগীর স্বজনদের অভিযোগ, অদক্ষ সার্জন দিয়ে চিকিৎসা করার কারণে রোগীর বাম পা ধীরে ধীরে অবশ হয়ে যাচ্ছে। এতে ওই রোগী ক্রমসই পঙ্গুত্বের দিকে এগুচ্ছে। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, অপরেশনের প্রভাবে রোগির কিছুই হয়নি। কিছুদিন রেস্ট ও ফিজিওথেরাপির ব্যায়াম করলে সে ঠিক হয়ে যাবে। জানা গেছে, ভুল চিকিৎসার শিকার হওয়া ওই রোগীর বাড়ি কাশীপুর হাটখোলা এলাকায়।

রোগীর স্বামী মফিজউদ্দিন জানান, পিত্তথলির পাথরের সমস্যা নিয়ে গত ২৯ জুন কাশীপুর ভোলাইল এলাকার ফ্রেন্ডসশীপ হাসপাতাল এন্ড ল্যাব নামের ওই হাসপাতালে মাকসুদাকে ভর্তি করানো হয়। বাইরে থেকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে ২ জুলাই সন্ধ্যায় তার অপারেশন করানো হয়। অপারেশনের পর থেকে রোগী মাকসুদার বাম পা অবশ হতে শুরু করে। এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠান মালিকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, দু’য়েক দিনের মধ্যে ঠিক হয়ে যাবে। এই অবস্থার মধ্য দিয়ে ৬ জুলাই রোগীকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। কিন্তু ১৭ জুলাই পর্যন্ত রোগীর অবস্থার উন্নতি হয়নি। ধীরে ধীরে পা’টি আরও অবশ হয়ে যাচ্ছে।

এদিকে, হাসপাতালে মালিক রিয়াজউদ্দিন বলেন, আমরা রোগির পায়ের অপারেশন করিনি। তার পিত্ততলির পাথরের অপারেশন হয়েছিলো। অপারেশনে পরে তারা জানায় যে রোগীর পা নাকি নাড়াতে পারছে না। এ বিষয়ে আমরা সার্জনের সাথে আলাপ করেছি। তারা জানিয়েছে, রগের কিছু ভিটামিন খেতে। যেখানে রোগির ২-৩ দিন থাকার কথা সেখানে তারা এক সপ্তাহের বেশি ছিলো। ডাক্তার বলেছে কিছুদিন রেস্ট ও ফিজিওথেরাপির ব্যায়াম করলে সে ঠিক হয়ে যাবে। বয়স হয়ে গেছে যার জন্য তার রগগুলো দূর্বল। তারপরে কিছু মেডিসিনের ইফেক্ট (প্রভাব) থাকতে পারে।

আরও পড়ুনঃ

অন্যদিকে রোগির স্বামী মফিজউদ্দিন অভিযোগ করেন, হাসপাতাল যে ডাক্তার দিয়ে এনেস্থিয়া দেওয়ানো হয়েছে তিনি অদক্ষ। ওই ইনজেকশনের কারণে রোগী এখন দাঁড়াতেই পারছে না। আস্তে আস্তে কোমরও অবশ হয়ে যাচ্ছে।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ