১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, বিকাল ৪:২৪

ময়লায় বন্দি ফতুল্লা

নিজস্ব প্রতিবেদক

সদর উপজেলার ফতুল্লা,কুতুবপুর ও এনায়েতনগর ইউনিয়নের বিভিন্ন্ এলাকায় ৭ দিন ধরে ময়লা নিচ্ছে না পরিচ্ছন্নকর্মীরা। এতে করে লাখ লাখ মানুষের বাড়ি ঘরে ময়লা জমে  তারা ময়লা বন্দি হয়ে আছে।

এলাকায় দুর্গন্ধ ছড়িয়ে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। এলাবাসির অভিযোগ, দ্রুত ব্যবস্থা না নেয়া হলে ময়লার গন্ধে এলাকা ছেড়ে চলে যেতে হবে। পরিচ্ছন্নকর্মীদের দাবি, ময়লা ফেলার জায়গা না থাকায় তারা বাড়ি বাড়ি থেকে ময়লা নেয়া বন্ধ করে দিয়েছে।

জানা গেছে, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের জালকুড়িতে ফতুল্লা থানার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদ এলাকার গৃহস্থালী বর্জ্য ভ্যানগাড়ি দিয়ে কয়েকটি সংস্থা সংগ্রহ করে। পরে তারা তা জালকুড়িতে ফেলতো। গত ২০ আগস্ট থেকে আবর্জনা সংগ্রহ বন্ধ করে দিয়েছে পরিচ্ছন্ন কর্মীরা।

স্থানীয়রা বলেন, হঠাৎ আবর্জনা সংগ্রহ বন্ধ রয়েছে। এর আগেও কয়েকবার এমন হয়েছে। তবে এবার আবর্জনা সংগ্রহকারীরা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন কতদিন বন্ধ থাকবে সেটা নিশ্চিত না। এলাকবাসি জানান, বাসাবাড়ির ময়লা না নেয়ায় নানা সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। এলাকার রাস্তায় রাস্তায় ময়লা জমে রয়েছে। দুর্গন্ধ ছড়িয়ে এলাকার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। নারায়ণগঞ্জের প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মেম্বারা যদি দ্রুত ব্যবস্থা না নেন তাহলে ময়লার গন্ধে এলাকা ছেড়ে চলে যেতে হবে। 

পরিচ্ছন্নকর্মীদের দাবি, ময়লা ফেলার জায়গা না থাকায় তারা বাড়ি বাড়ি থেকে ময়লা নেয়া বন্ধ করে ছিয়েছে। যেখানে আবর্জনা ফেলা হতো সেখানে ময়লা ফেলতে নিষেধ করেছে পাশেই থাকা বিজিবি ক্যাম্পের লোকজন। সেদিন থেকে ফতুল্লার বিভিন্ন এলাকা থেকে আবর্জনা সংগ্রহ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।       

এ প্রসঙ্গে কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু বলেন, ময়লা ডাম্পিংয়ের জন্য সরকার আমাদের কোন জমি দেয়নি এবং আমাদের কাছে ময়লা ডাম্পিংয়ের কোন বরাদ্দ নেই। তাই কিছু করার নাই। বিজিবি ক্যাম্প থেকে দুর্গন্ধের জন্য ময়লা ফেলা নিষেধ করা হয়েছে।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ