১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, বিকাল ৪:২৭

মন্ডলপাড়া ব্রিজ থেকে নিতাইগঞ্জ অবৈধ স্ট্যান্ডে ভিড়

নিজস্ব প্রতিবেদক:

শহরে মন্ডলপাড়া ব্রিজ থেকে নিতাইগঞ্জ পর্যন্ত রাস্তার দুই পাশেই ট্রাক পার্কিং ও সিএনজি, ইজি বাইকের অবৈধ স্ট্যন্ড নিয়ে শহরবাসির বিভিন্ন অভিযোগ থাকলেও এসব বিষয়ে তেমন কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায় না নাসিককে। এই সড়কে চলাচল করা সাধারন মানুষের দূর্ভোগ লাঘবে বিভিন্ন সময় ট্রাফিক বিভাগ অভিযান চালায়। তবে প্রশাসনকে পাত্তা না দিয়ে ঘুরেফিরে ঠিক আগের জায়গা দখল করে রাখে এসব পরিবহন। এতে চরম ভোগান্তিতে পরতে হচ্ছে চলাচলরত মানুষকে।

জানা গেছে, মালিক সমিতি ও বিভিন্ন সংগঠনের নামে মন্ডলপাড়া ব্রিজের পাশে অবৈধ সিএনজি ও ইজি বাইকের স্ট্যন্ড গড়ে তুলেছে কিছু কথিত নেতারা। আবার প্রতিটি গাড়ি থেকে চাঁদার টাকাও আদায় করা হয়। আর তাই সব সময়ই রাস্তা দখল করে খুব সহজেই যাত্রীর আসায় বসে থাকে। অন্যদিকে নিতাইগঞ্জ থেকে মন্ডলপাড়া পর্যন্ত রাস্তার দুই পাশে ট্রাক, কাভার্ডভ্যান সহ বিভিন্ন পরিবহন সব সময়ই পার্কিং কওে রাখে।

তবে এসব পরিবহন থেকেও মালিক সমিতি সহ বিভিন্ন নামে চাঁদার টাকা আদায় করা হয়। আর চাঁদা নেয় বলেই প্রশাসনকে পাত্তা না দিয়েই রাস্তা দখল করে রাখে। এছাড়াও নিতাইগঞ্জ থেকে মন্ডলপাড়া ব্রিজ পর্যন্ত ২ থেকে ৩ স্থানে রাস্তার মাঝ খানে দাড়িয়ে সিটি কর্পোরেশনের টোল আদায় করা হয়। এতে করে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে এই সড়কে চলাচল করা সাধারণ মানুষ ও বিভিন্ন রুট থেকে আসা পরিবহন চালকদের।

সরেজমিনে দেখা যায়, মন্ডলপাড়া ব্রিজের পাশে অবৈধ সিএনজি ও ইজি বাইকের স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে। সকাল থেকেই অবৈধভাবে ২০টিরও বেশী সিএনজি পার্কিং করে স্ট্যান্ড বানিয়ে থেমে আছে। এই সড়কের নিতাইগঞ্জ থেকে মন্ডলপাড়া পর্যন্ত রাস্তার দুই পাশে ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও পিকাপভ্যান সহ প্রায় ৫০ থেকে ৬০ টি গাড়ি রাস্তা দখল করে আছে। এছাড়াও নিতাইগঞ্জ মোড়, মন্ডলপাড়া ফায়ার সার্ভিসের সামনে ও মন্ডলপাড়া পুলে রাস্তার মাঝে দাঁড়িয়ে সিটি কর্পোরেশনের টোল আদায় করা হচ্ছে।

শহরবাসির অভিযোগ, রাস্তা দখল করে এখান থেকে যাত্রী নিয়ে তারা আবার বিভিন্ন গন্তব্যে যাচ্ছে। আর এসব রাস্তা দখল করতে সাহায্য করছে স্থানিয় কিছু কথিত নেতারা। যারা প্রতিটি পরিবহন থেকে চাঁদা আদায় করে। তবে এসব বিষয় নাসিকের কার্যালয়ের সামনে হলেও কেউই কিছু বলে না। আর এতে সাধারন মানুষ প্রতিবাদ করতে আসলে তাদের উপর তেরে আসে এবং খারাপ আচরণ করে। আবার কথিত নেতাদের হাতে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি হতে হয়।

উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জ সদর থানার জিমখানা টু কাশিপুর দেওয়ানবাড়ি এবং জিমখানা টু কাশিপুর খিলমার্কেট এলাকায় প্রতিদিন হরদম চলছে সরকার নিষিদ্ধ এসব অবৈধ ইজি বাইক। রাস্তায় চলাচলের ক্ষেত্রে এ সকল ইজি বাইকের নেই কোন প্রকার লাইসেন্স কিংবা অনুমোদন। উপজেলা পরিষদ কিংবা নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন থেকে এসব অবৈধ ইজিবাইক চলাচলে কোনো অনুমোদন দেওয়া হয় না হলেও নেতাদের চাঁদা দিলেই রাস্তায় চলাচল করতে পারে কোনো প্রকার বাধা ছাড়াই।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ