২৩শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৮ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, সন্ধ্যা ৭:০৫

২০টি ফায়ার স্টেশন উদ্বোধন

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:

দেশের বিভিন্ন স্থানে নবনির্মিত ২০টি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী। ২৭ ডিসেম্বর রবিবার কাজী আলাউদ্দিন রোডে অবস্থিত ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সদর দপ্তরে এ উপলক্ষে উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সকাল ১১টায় শুরু হওয়া এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সিং-এর মাধ্যমে গণভবন থেকে যুক্ত হন। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ফায়ার সার্ভিস প্রান্তে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এমপি এবং বাংলাদেশ বিমান প্রান্তে বিশেষ অতিথি ছিলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি শামসুল হক টুকু এমপি, সংসদ সদস্য পংকজ নাথ, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য জিন্নাতুল বাকিয়া, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব জনাব মোঃ শহিদুজ্জামান, জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব জনাব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মোঃ সাজ্জাদ হোসাইন, ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট এবং কারা অধিদপ্তরের প্রধানগণ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। 

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে যুক্ত হলে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স-এর সদর দপ্তরে উপস্থিত সকলে দাঁড়িয়ে সম্মান প্রদর্শন করেন। অনুষ্ঠানে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন-অগ্রগতি এবং উদ্বোধন হওয়া স্থাপনাসমূহের ওপর দুটি ভিডিও ডকুমেন্টরি প্রচার করা হয়। এরপর শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ২০টি ফায়ার স্টেশন, ৬টি আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, কেরাণীগঞ্জে স্থাপিত মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগার, ১টি এলপিজি স্টেশন এবং বাংলাদেশ বিমানে সংযুক্ত নতুন উড়োজাহাজ ধ্রুবতারার শুভ উদ্বোধন করেন।

প্রধানমন্ত্রী প্রায় ১৪৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নবনির্মিত যে ২০টি ফায়ার স্টেশনের উদ্বোধন করেন সেগুলো হলো : নওগাঁ জেলার রাণীনগর ফায়ার স্টেশন, মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর ফায়ার স্টেশন, রাজশাহী জেলার মোহনপুর ফায়ার স্টেশন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নাচোল ফায়ার স্টেশন, পাবনা জেলার আটঘরিয়া ফায়ার স্টেশন, বি.বাড়িয়া জেলার নবীনগর ফায়ার স্টেশন, শরিয়তপুর জেলার জাজিরা ফায়ার স্টেশন, কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ ফায়ার স্টেশন, বগুড়া জেলার শাহজাহানপুর ও আদমদিঘী ফায়ার স্টেশন, জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল ফায়ার স্টেশন; সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি ও কলারোয়া ফায়ার স্টেশন, নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা ফায়ার স্টেশন, বরিশাল জেলার হিজলা ফায়ার স্টেশন,মানিকগঞ্জ জেলার হরিরামপুর ফায়ার স্টেশন, পিরোজপুর জেলার ইন্দুরকানী ফায়ার স্টেশন, চট্টগ্রাম জেলার সন্দ্বীপ ফায়ার স্টেশন, পাবনা জেলার সাঁথিয়া ফায়ার স্টেশন এবং সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর ফায়ার স্টেশন।

উল্লেখ্য, বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহণের আগে ২০০৮ সালে দেশে ফায়ার স্টেশন ছিল ২০৪টি। প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক নতুন উদ্বোধন হওয়া ২০টিসহ সারা দেশে চালু ফায়ার স্টেশনের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪৫৬টি। প্রকল্পের কাজ শেষ হলে ফায়ার স্টেশনের সংখ্যা দাঁড়াবে ৫৬৭টি।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ