৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, রাত ৯:০৬

রাষ্ট্রের অনিয়ম দূর্নীতি আড়াল করার সুযোগ নেই- রফিউর রাব্বি

সংবাদচর্চা রিপোর্ট:

নাগরিক কমিটির সহ-সভাপতি রফিউর রাব্বি বলেছেন, তল্লায় বিস্ফোরণ ঘটা মসজিদটি বৈধভাবে নির্মিত হয়েছে কিনা। এর গ্যাস ও বিদুৎ সংযোগ বৈধ কিনা? এতো বড় ঘটনা ঘটার পরে এই প্রশ্নগুলো কি কারনে আসবে? প্রশ্নগুলো আনার অর্থই হচ্ছে, যে ঘটনা ঘটেছে এর জন্য প্রকৃত যে রাষ্ট্রের দায়, সেই দায় থেকে রাষ্ট্রকে রক্ষা করা। আমাদের দেশে মসজিদগুলো কিভাবে গড়ে উঠছে আমরা জানি।

আজকে প্রধানমন্ত্রী বলছেন মসজিদের নির্মানের প্লান সঠিক ছিলো কিনা কিনা? আমি প্রশ্ন করতে চাই, দেশে মসজিদে যে অহরহ গড়ে উঠছে, তারা কোথায় থেকে প্লান নকশা অনুমোদন নিচ্ছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে মসজিদ নিয়মমেনে হয় না। এভাবেই মসজিদ গড়ে উঠার রেওয়াজ যুগের পর যুগ চলে আসছে। সেভাবেই হচ্ছে। এইভাবেই যে মসজিদ গড়ে উঠছে এটাই কি প্রথম আমরা তল্লার ঘটনার পর আমরা জানলাম? এটা আমরা সবাই জানি। মসজিদ কিভাবে নির্মিত হয়, মন্দির কিভাবে গড়ে উঠে। মসজিদ নির্মানের অবব্যস্থপনাকে সামনে রেখে রাষ্ট্রের যে অনিয়ম, দূর্ণীতি এইটাকে আড়াল করার কোন সুযোগ নেই।

শনিবার সকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে সামনে নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির উদ্যোগে তল্লা মসজিদে অগ্নি বিস্ফোরণের বিচারবিভাগীয় তদন্ত, দোষীদের দৃষ্টান্তমূলখ শাস্তি ও হতাহতদের যথাযত ক্ষতিপূরণের দাবীতে মানববন্ধেন এসব কথা বলেন তিনি।

রফিউর রাব্বি আরও বলেন, মসজিদটি নির্মিত হয়েছে ৩০ বছর আগে। পাইপলাইনটি পরে গেছে। তলদেশ দিয়ে না গেলেও পাশ দিয়ে গিয়েছে। তখন কি তারা জানতো না পাইপটি লিকেজ হতে পারে? তিতাস কোম্পানীকে জানানো হয়েছে। এটি কি এমন শুধু তল্লাতেই এমন হচ্ছে। আমাদের পাড়া মহল্লায় গ্যাস লিকেজ রয়েছে।

এটা তিতাস গ্যাস কোম্পানীকে বহু জায়গা থেকে জানানোর পরও প্রতিকার হয় না। বিদুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেছিলেন, নারায়ণগঞ্জে গ্যাস লাইনে অব্যবস্থাপনা রয়েছে, এটা শুধু নারায়ণগঞ্জেই নয়, সারা বাংলাদেশে রয়েছে। গতকাল জাতীয় দৈনিকে দেখেছি, হাজার হাজার অবৈধ সংযোগ এই টাকা সরকারের কোষাগারে যায় না, তিতাস কতৃপক্ষ এবং গ্রাহক এই টাকা ভাগবাটোয়ারা করে নেয়। এই বিষয়গুলা নতুন নয়। আমরা চাচ্ছি এই ঘটনা আড়াল বা অন্যদিকে ধাবিত না করার চেষ্টার করে, একজন বিচারপতির নেতৃত্বে বিচারবিভাগীয় তদন্তে কমিটি গঠন করে চিহ্নিত করা হোক। ঘটনার কারন উদ্ঘাটন করা হোক। যারা এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত তাদেরকে বিচারের আওতায় এনে সবোর্চ্চ শাস্তির দাবী জানাচ্ছি।

নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সভাপতি এডভোকেট এবি সিদ্দিক’র সভাপতি এ সময়ে আরও উপস্থিত ছিলেন কমিউনিস্ট পার্টি জেলার সভাপতি হাফিজুল ইসলাম, সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ভবানি শংকর রায়, গনসংহতি আন্দোলনের জেলার সমন্বয়ক তরিকুল সুজন, ছাত্র ফেডারেশনের জেলার সভাপতি সুলতানা আক্তার প্রমুখ।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ