১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, বিকাল ৪:২৮

মারামারি বেড়ে গেছে : এসপি জায়েদুল আলম

নিজস্ব প্রতিবেদক:

পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম বলেছেন, কয়দিন পর কাউন্সিলর নির্বাচন অথচ এখানে এই মুহুর্তে মারা মারি বেড়ে গেছে। কিশোররা এলাকায় বসে আড্ডা মারে। এগুলো কারা করে, নিশ্চয় এরা আপনাদের কারো না কারো ছেলে। তাদেরকে পত্র পত্রিকায় কিশোর গ্যাং বলা হয়। এদেরকে আপনার আমার ঠিক করতে হবে। কিশোররা চুলের বিভিন্ন স্টাইল করে টিকটক ভিডিও করে। এগুলো বন্ধ করেন, মাদকও বন্ধ হয়ে যাবে। শনিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ওপেন হাউজডে উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অথিতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

এসপি জায়েদুল আলম বলেন, আপনারা যদি মনে করেন আপনাদের ছেলে নেশা খাইতাছে এটা কোন সমস্যা না তাহলে মাদক মুক্ত হবে না। অন্যের ছেলে খায়, তাকে আগে ধরতে হবে। তাহলে সমস্যা সমাধান হবে না, নিজেরটা আগে ধরতে হবে। যদি এই মনোভাব নিয়ে আসতে পারেন, তাহলে আমি কথা দিচ্ছি সিদ্ধিরগঞ্জের দশটা ওয়ার্ড মাদক মুক্ত করতে পারবো। নিজেদেরকে আগে শোধরাতে হবে। মাদক নির্মুল করেত হলে এলাকার সচেতন ব্যক্তি, রাজনীতিবীদ সহ জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে বসেন। আপনারা ঠিক করবেন কিভাবে এটা বন্ধ করা যায়। আমরা আপনাদের সহযোগিতা করব।

তিনি বলেন,আমরা মাদক ব্যবসায়িদের গ্রেপ্তার করে কোর্টে চালান দেই কিন্তু তারা কোর্ট থেকে জামিন নিয়ে ছাড়া পেয়ে যায়। থানায় এসে কেউ তদবীর করে কোন লাভ হবে না। যত বড় ক্ষমতাবান ব্যক্তি হন না কেন, আমি যতদিন নারায়ণগঞ্জে আসি ততো দিন কোন তদবীরে কাজ হবে না। তা মারা মারির হউক বা মাদকের মামলা হউক। কোন মামলার আসামি ধরে ছেরে দিছে এমন ঘটনা হলে আমাকে জানাবেন। আমি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবো। আমরা বেআইনির পক্ষে না।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি কামরুল ফারুক, নাসিক ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরিফুল হক হাসান, ৫নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর জি.এম. সাদরিল, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিজবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াছিন মিয়া।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ