আজ বৃহস্পতিবার, ৯ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ব্যবসায়ী সেলিম হত্যায় ২ জনের যাবজ্জীবন, খালাস ১ জন

কামরুজ্জামান সেলিম চৌধুরী নামের এক ঝুট ব্যবসায়ীকে হত্যা দায়ে সন্দেহভাজন দু’জন হত্যাকারীকে যাবজ্জীবন কাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে নারায়ণগঞ্জের একটি আদালত।

সোমবার সকালে জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক সাবিনা ইয়াসমিন হত্যা মামলাটির আসামী মোহাম্মদ আলী (৪৩) ও ফয়সাল (৩১) কে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন। এছাড়াও একই মামলায় সোলায়মান নামের আরেক আসামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় তাকে মামলার দায় থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়।

দণ্ডপ্রাপ্ত মোহাম্মদ আলী ফতুল্লার ডিগ্রীরচর এলাকার সালাউদ্দিনের ছেলে, মো. ফয়সাল একই এলাকার মৃত বাচ্চু মিয়ার ছেলে এবং অব্যহতি (খালাস) পাওয়া মো. সোলায়মান মিয়া ফতুল্লার পশ্চিম গোপালনগর এলাকার মৃত আ. সামাদ মিয়ার ছেলে।

রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালত পুলিশের পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান। মামলার বরাত দিয়ে তিনি জানান, ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন ঝুট ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান সেলিম চৌধুরী। ৬ এপ্রিল ফতুল্লা মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তার স্ত্রী। এর দু’দিন পর একই থানায় অপহরণ মামলাটি করা হয়। ১০ এপ্রিল ফতুল্লার ভোলাইল এলাকার আরেক ঝুট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলীর গোডাউনের মেঝে খুঁড়ে সেলিম চৌধুরীর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

তিনি আরও জানান, দন্ডপ্রাপ্ত মোহাম্মদ আলীর কাছে দুই লাখ টাকা পেতেন সেলিম চৌধুরী। টাকা ফেরত দিতে চাপ দেওয়ায় পূর্বপরিকল্পিতভাবে হত্যা করে মরদেহ নিজের গোডাউনে পুঁতে রাখে মোহাম্মদ আলী। মরদেহের পাশে চুন দিয়ে রাখে যাতে মাটির সঙ্গে মিশে যায়। মোহাম্মদ আলীর পরিকল্পনা অনুযায়ী ৩১ মার্চ বিকেলে সেলিম চৌধুরীকে মোহাম্মদ আলীর গোডাউনে হত্যা করা হয়। এরপর মোহাম্মদ আলী, ফয়সাল, আলী হোসেন ও সোলয়মানসহ চারজন মিলে সেলিমের হাত-পা বেঁধে বস্তায় ভরে রাখে। পরে গোডাউনের ভেতরে একটি গর্ত করে মাটিতে পুঁতে রাখে মরদেহ। এরপর ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করা হয়। এ মামলায় আজ তাদেরকে সাঁজা প্রদান করা হয়েছে।

আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) জাসমীন আহমেদ জানান, ২০১৯ সালের মার্চ মাসে দায়ের করা এ মামলায় তিনজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। মামলার বাদী, তদন্ত কর্মকর্তাসহ ১১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য ও প্রমাণের ভিত্তিতে আদালত দুইজনের যাবজ্জীবন ও একজনকে খালাস দিয়েছেন।

নিহত ব্যবসায়ী সেলিম চৌধুরী ফতুল্লার বক্তাবলী ইউনিয়নের কানাইনগর এলাকার মৃত শামসুল হুদার ছেলে। সেলিম চৌধুরী ব্যবসার সুবিধার্থে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে ফতুল্লার শিবু মার্কেট এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।

(সংবাদচর্চা/২০জুন/এমএল)

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ