২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, দুপুর ১২:২২

বিজয়ীদের গেজেট প্রকাশ


সংবাদচর্চা রিপোর্ট:

তারাব পৌরসভা নির্বাচনে (২০২১) জয়ীদের নাম, ঠিকানা ও পদসহ গেজেট প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন। যে কোনো সময় নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরা শপথ নেবেন। রবিবার ( ২৪ জানুয়ারি) এ গেজেট প্রকাশ করে ইসি। তারাব পৌরসভার মেয়র পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হাছিনা গাজী বিজয়ী হয়েছেন।

সংরক্ষিত ১ নং (১,২,৩ ওয়ার্ড) ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বিজয়ী হয়েছেন লায়লা পারভীন। তিনি জবা ফুল প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ২শত ৯৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিবি হাওয়া শিল্পী আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৩ হাজার ২ শত ৭৬ ভোট।

সংরক্ষিত ২ নং ( ৪,৫,৬ ওয়ার্ড ) ওয়ার্ডে নতুন প্রার্থী মাহফুজা বেগম বিজয়ী হয়েছেন। তিনি আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৬৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আছমা বেগম জবা ফুল প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৩শত ৬৬ ভোট। আছিয়া বেগম চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ৮শত ৭৮ ভোট, সালমা খান টেলিফোন প্রতীকে পেয়েছেন ১শত ৪৭ ভোট।
সংরক্ষিত ৩ নং ( ৭,৮,৯ ওয়ার্ড ) ওয়ার্ডে জোসনা বেগম বিজয়ী হয়েছেন। তিনি চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ৯ হাজার ২শত ২৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী পারুল আক্তার আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ৮শত ৬০ ভোট। মোছলেমা আক্তার জবা ফুল প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ৯৫ ভোট। শাহনাজ আক্তার হারমোনিয়াম প্রতীকে পেয়েছেন ৬শত ১২ ভোট।

সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১ নং ওয়ার্ডে রফিকুল ইসলাম মনির বিজয়ী হয়েছেন।
২ নং ওয়ার্ডে এড. জসিম উদ্দিন ভুঁইয়া বিজয়ী হয়েছেন। তিনি উটপাখি প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ১৫ ভোট । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রাজীব আহমেদ ডালিম প্রতীকে পেয়েছেন ৭ শ ৮ ভোট। শহীদ হোসেন টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে পেয়েছে ২৮ ভোট।

৩ নং ওয়ার্ডে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে। এই ওয়ার্ডে বিজয়ী হয়েছেন রাসেল শিকদার। তিনি ব্রিজ প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৪ শত ৪৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএম তৌহিদুল ইসলাম পানির বোতল প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৩ শত ২৭ ভোট। মো: আরজু মিয়া ফাইল কেবিনেট প্রতীকে পেয়েছেন ৯শত ২৯ ভোট। সোহেল মিয়া উটপাখি প্রতীকে পেয়েছেন ৮ শত ৯১ ভোট। আব্দুল কাদির ডালিম প্রতীকে ১শত ১৪ ভোট পেয়েছেন। কাশেম ভুঁইয়া পাঞ্জাবি প্রতীকে পেয়েছেন ৫৪ ভোট। মোহাম্মদ আলী পেয়েছেন ১৪ ভোট। ফরহাদ আলী ৬০ ভোট পেয়েছেন। ৪ নং ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে আক্তার হোসেন বিজয়ী হয়েছেন।
সাধারণ কাউন্সিলর ৫ নং ওয়ার্ডে হামিদুল্লাহ বিজয়ী হয়েছেন। তিনি উটপাখি প্রতীকে পেয়েছেন ৩ হাজার ২ শত ১১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তোফাজ্জল হোসেন ডালিম প্রতীকে পেয়েছেন ৯ শত ৯৪ ভোট। জাহাঙ্গীর হোসেন পাঞ্জাবি প্রতীকে পেয়েছেন ১শত ৮ ভোট, আবুল কালাম আজাদ পানির বোতল প্রতীকে পেয়েছেন ২৮ ভোট, জাহাঙ্গীর সাউদ ফাইল কেবিনেট প্রতীকে পেয়েছেন ৫২ ভোট, নজরুল ইসলাম টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে পেয়েছেন ২৩ ভোট। ৬ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে মাহাবুবুর রহমান জাকারিয়া বিজয়ী হয়েছেন।

৭ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বিজয়ী হয়েছেন আনোয়ার হোসেন। তিনি ডালিম প্রতীকে পেয়েছেন ৩ হাজার ৮শত ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রহুল আমিন ফরাজী উটপাখি প্রতীকে পেয়েছেন ১ শত ৬৮ ভোট। জুনায়েদ পাঞ্জাবী প্রতীকে পেয়েছেন ৪৫ ভোট, শফিউদ্দিন প্রধান ব্লাক বোর্ড প্রতীকে পেয়েছেন ৬৪ ভোট।
সাধারণ কাউন্সিলর ৮ নং ওয়ার্ডে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে। এই ওয়ার্ডে বিজয়ী হয়েছেন আমির হোসেন ভুঁইয়া। তিনি উটপাখি প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ৪৭ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো: আকবর বাদশাহ ডালিম প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৮ শত ৬০ ভোট। আলহাজ্ব মো: নুর আলম ভুঁইয়া টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৩ শত ৫৭ ভোট।

৯ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে বিজয়ী হয়েছেন আতিকুর রহমান। তিনি টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৩ শত ৩২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আমজাদ হোসেন উটপাখি প্রতীকে পেয়েছেন ১শত ৩১ ভোট।
প্রসঙ্গত গত ১৬ জানুয়ারি সকাল ৮ হতে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত ইভিএম পদ্ধতিতে তারাব পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ হয়। এবার ভোট হয় ৬ টি সাধারণ কাউন্সিলর এবং ৩টি সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে। মোট প্রার্থী ছিলো ৩৬ জন। তার মধ্যে সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী ১০ জন, সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী ২৬ জন। তারাব পৌরসভার মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৪৩ টি , মোট ভোট কক্ষ ২৮২টি। মোট ভোটার সংখ্যা ৮৫ হাজার ২ শ ৬৯ টি। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ৪৪ হাজার ১ শ ৫১ জন, মহিলা ভোটার ৪১ হাজার ১শ ১৮ ভোট।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ