১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, সকাল ৬:০৩

বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পরাধীন জাতির মুক্তির একটি ঐতিহাসিক বার্তা

সংবাদচর্চা রিপোর্ট: স্বাধীনতা পুরস্কার প্রাপ্ত নারায়ণগঞ্জ -১ (রূপগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ শুধু বাংলাদেশ নয়, সারা বিশ্ববাসির একটি সম্পদ। পরাধীন জাতির মুক্তির একটি ঐতিহাসিক বার্তা। বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীনতার প্রতীক। বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না। ৭ মার্চের ভাষণকে অস্বীকার করা মানে বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে অস্বীকার করা। বঙ্গবন্ধু শুধু বাঙালির না। উনি সারা বিশ্বের নেতা। বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্বের শোষিত মানুষের কন্ঠস্বর। যেখানেই অন্যায় অবিচার ছিলো সেখানেই বঙ্গবন্ধু প্রতিবাদ করেছেন। পাকিস্তানের শাসক গৌষ্ঠী যাতে বঙ্গবন্ধুকে বিদ্রোহী বলতে না পারে বঙ্গবন্ধু সেই ভাবে কৌশলে বাঙালিদের মুক্তির বার্তা দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, একটি জাতিকে কিভাবে জাগ্রত করতে হবে তা বঙ্গবন্ধু ভালো করেই জানতেন। মিয়ানমার, সিরিয়া, ফিলিস্তিন, ইরাকসহ সারা বিশ্বে আজ যে জাতিগত শোষণ, হত্যা , নিপীড়ন শুরু হয়েছে গেছে তা বঙ্গবন্ধুর ভাষণ অনুসরণ করলে সমস্যার সমাধান করা সম্ভব।

সোমবার ( ৮ মার্চ) বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ উপলক্ষে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় কর্তৃক ‘ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস-২০২১ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে গোলাম দস্তগীর গাজী,বীরপ্রতীক এসব কথা বলেন।

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকমান হোসেন মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বস্ত্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালক দিলীপ কুমার সাহা, বিটিএমসি’র চেয়ারম্যান ব্রি: জেনারেল মোঃ জাকির হোসেন, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এস.এম.সেলিম রেজা, সাবিনা ইয়ামিন (অতি: সচিব), বাংলাদেশ তাঁত বোর্ডের চেয়ারম্যান মো: শাহ আলমসহ বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ  উপস্থিত ছিলেন।

গোলাম দস্তগীর গাজী বলেন, বঙ্গবন্ধুর ভাষণের রেকর্ড ধবংস করার জন্য নানা ষড়ষন্ত্র হয়েছে। একুশ বছর বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বাজাতে পারি নাই। বিএনপি বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বাজানো শুনলেই হামলা -মামলা করেছে। শুধু তাই নয় বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ করতে দেয় নাই। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বিএনপি জামায়াত স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি মুক্তিযোদ্ধাদের নাম শুলে মামলা- হামলা করেছে । ছিয়ানব্বই সালে জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতা গ্রহণ করলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনপ্রতিষ্ঠিত হয়। বঙ্গবন্ধুর ভাষণের রেকর্ড সংরক্ষণ করা হয়। বঙ্গবন্ধুর কন্যা সকল মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বৃদ্ধি করেছেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমাপ্ত করার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। তার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে যাচ্ছে । কৃষি ,শিক্ষা ,চিকিৎসা ,তথ্যপ্রযুক্তি খাত,যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন হয়েছে। বিদ্যুতের উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে, দেশ খাদ্যে স্বয়ংস্বম্পূর্ণ অর্জন করছে। মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। পদ্মাসেতু দৃশ্যমান হয়েছে।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ