১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, রাত ১:২৮

ফজরের নামাজ পড়ে নিজে চা বানিয়ে খান প্রধানমন্ত্রী

সংবাদচর্চা রিপোর্ট: সকালে ঘুম থেকে উঠে ফজরের নামাজ পড়েন। তারপর নিজের চা নিজে বানিয়ে খান বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার ( ৯ সেপ্টেম্বর) জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত সময়ে সংসদ সদস্য ফখরুল ইমামের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ফখরুল ইমাম তাঁর প্রশ্নে বলেন, আপনি চাকরি করেন আপনার মাইনা দেয় ওই গরীব কৃষক । আপনার মাইনা দেই ওই জমির শ্রমিক, আপনার সংসার চলে এই টাকায় । আমি গাড়িতে চড়ি ওই টাকায় ।ওদের সম্মান করে কথা বলেন। ওদের ইজ্জত করে কথা বলেন। ওরাই মালিক। উক্তিটি কার? ‘ঘুম থেকে উঠে শিশুরা মা খোঁজে,  যুবকেরা বউ খোঁজে, আমি মোবাইল খুঁজি, আর আমার মা ঝাড়ু খোঁজে। আমার প্রশ্ন, প্রধানমন্ত্রী ঘুম থেকে উঠে কী খোঁজেন?’

এর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, উক্তিটি বঙ্গবন্ধুর। ‘সকালে ঘুম ভাঙার পর আগে জায়নামাজ খুঁজি। নামাজ পড়ি। তারপর কোরআন তিলাওয়াত করি। তারপর সকালের নিজের চা-টা নিজে বানিয়ে খাই। আমার ছোট বোন রেহানা আছে। যে আগে উঠে, সে চা বানায়। এখন আমার মেয়ে পুতুলও রয়েছে। সেও যদি ঘুম থেকে আগে ওঠে, তাহলে সেও চা বানায়। তার আগে নিজের বিছানাটা গুছিয়ে রাখি নিজের হাতে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘এখন তো করোনাকালে নামাজ পড়ে, চা খেয়ে বই-টই পড়ার থাকলে পড়ি। আর একটু হাঁটাহাঁটি করি। গণভবনে একটা লেক আছে। সেই লেকের পাশে বসে মাছ ধরি।’

‘আমাদের বাবার শিক্ষা রিকশাওয়ালাকে আপনি করে বলতে হবে। ড্রাইভারকে সাহেব বলতে হবে। বাড়ির কাজের লোকজনকে হুকুম দেওয়া যাবে না। আমরা সেই শিক্ষাই অর্জন করেছি। আমার বাসায় যারা কাজ করে, তাদের কখনো হুকুম দিই না। বলি, আমাকে এটা করে দিতে পারবে? সেই শিক্ষাই জাতির পিতা আমাদের দিয়েছেন।’ বলছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় মেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় নারায়ণগঞ্জ -১ ( রূপগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীকসহ অন্যান্য সংসদ সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ