আজ বুধবার, ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

প্রতিহিংসার রাজনীতি শুরু

বিশেষ সংবাদদাতা:

নারায়ণগঞ্জে শুরু হয়েছে প্রতিহিংসার রাজনীতি। কে কাকে ল্যাং মেরে নিচে পেলে উপরে উঠবে এ ধরণের প্রতিযোগিতার প্রবনতা বৃদ্ধি পেয়েছে। শুধু স্বার্থের জন্য নিজ দলের লোকসহ বিরোধী দলের লোকদেরও মিথ্যা মামলা বা বিভিন্ন সভা সমাবেশে বক্তব্য দিয়ে ঘায়েল করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। যার প্রভাব এলাকার উন্নয়নে বাধাসহ দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি করেই চলছে। আর এর জন্য দল দিন দিন দুবর্ল হয়ে উঠছে। যেই প্রাচ্যেরডান্ডি নারায়ণগঞ্জ ছিল সেই খ্যাতি দিন দিন ম্লান হয়ে এখন সন্ত্রাসের নগরীর খ্যাতির অপবাদ নিয়ে বেড়াচ্ছে। নারায়ণগঞ্জ জেলার বাইরে গেলে অন্য জেলার লোকেরা নারায়ণগঞ্জের লোকদের একটু আড় চোখে দেখেন। কারণ নারায়ণগঞ্জে ৭ খুনের ঘটনাটি আন্তর্জাতিক ভাবে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করায় নারায়ণগঞ্জের ললাটে কালিমা লেপন করা হয়েছে। সেই সাথে নারায়ণগঞ্জে দলীয় বিরোধ একেবারেই চাঙ্গা। যুগ যুগ ধরে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগে দুই মেরুর নিয়ন্ত্রণে রাজনীতি হয়ে আসছে। সেই মেরুর বিরোধ এখন এতটাই চাঙ্গা নিজ দলের লোকদের মামলা দিয়ে হয়রানি করতে দ্বিধা করছে না। এমনকি নারায়ণগঞ্জে গণমাধ্যম কর্মীরাও নিরাপদ নয়। কখন কার বিরুদ্ধে সাজানো মামলা ঠুকে দিবে তার কোন নিশ্চয়তা নেই। শুধু থাই নয়, এখন আবার নতুন করে যোগ হয়েছে নির্বাচনে পরাজিত হয়ে বিজয়ী প্রার্থীর বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র। দুর্ঘটনাকেও সাজিয়ে ষড়যন্ত্র করে বিজয়ী প্রার্থীকে নাস্তানাবোধ করার জন্য মিথ্যা মামলা করতে ইন্ধন ও সহযোগিতা করছে এমন অভিযোগ রয়েছে। গুঞ্জন রয়েছে নাসিক ২৩নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর দুলাল প্রধান বর্তমান কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশার বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে।

এছাড়া নাসিক মেয়র সেলিনা হায়ত আইভীও নিজ দলের নেতা এড. খোকন সাহার বিরুদ্ধে মামলা করে নারায়ণগঞ্জের পরিবেশ উত্তপ্ত করে তুলেছে। এনিয়ে বেশ কিছু দিন নারায়ণগঞ্জে রাজনৈতিক পরিস্থিতি উত্তপ্ত ছিল। অপরদিকে বিএনপিতেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। জেলা বিএনপির আওতায় থানা কমিটি গঠন নিয়ে কয়েক স্থানে সংঘর্ষের ঘটনাসহ জেলা বিএনপির সদস্য সচিবকে হত্যার চেষ্টায় ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। আর এর অভিযোগ নিজ দলের শীর্ষ নেতার উপর দায় পড়েছে। আর এখানে রয়েছে পদের প্রতিযোগিতা আর সেই প্রতিযোগিতায় ছুরিকাঘাতের মত ঘটনা ঘটিয়ে পরিস্থিতি একেবারেই নাজুক করে তুলেছে। আর এ ঘটনায় একই দলের কয়েক নেতা কারাবাস করছে। পালিয়ে বেড়াচ্ছে সাবেক এমপিসহ তার পুত্ররা। আর একারণে রাজনৈতিক বিশ্লেষক মহল বলছে নারায়ণগঞ্জে এখন রাজনীতিতে নোংরামী শুরু হয়েছে। যার ভবিষ্যত ভাল নয়। এভাবে তারা নিজেরা নিজেদের মধ্যে সংঘাত করতে করতে রাজনীতি থেকে ছিঁটকে পড়বে।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ