১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, সকাল ৮:১১

পানি বাড়ে বুক কাপেঁ ডিক্রিরচরবাসীর

সংবাদচর্চা রিপোর্ট:

গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে হঠাৎ করে ধলেশ্বরী নদীর নারায়ণগগঞ্জ সদর উপজেলার পানি বৃদ্ধি শুরু হয়েছে। এতে করে এ উপজেলার আলীরটেক ও বক্তাবলী ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি এলাকায় ভাঙন আতঙ্গে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নদী তীরের মানুষ। ডিক্রিরচর এলাকার নদীর তীরের বসবাসরতরা জানান, ধলেশ্বরী নদীর পানি প্রবাহ বেড়েছে। শুকিয়ে যাওয়া মৃতপ্রায় ধলেশ্বরী নদীতে আবারো ফুলে-ফেঁপে উঠে ফিরে পেয়েছে সেই চিরচেনা রূপ।

সরজমিনের গিয়ে দেখা যায়, এ এলাকায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে পশ্চিমপাড়ার নদীর তীর ঘেষা বাড়িগুলো। প্রশাসন বা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে কোন উদ্যোগ না নিলে বাধ্য হয়েই গ্রাম পঞ্চায়েত কমিটি বাঁশের আলগাড়া ও ইটের নোঁড়া ফেলে ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা চালাচ্ছে। গতবছরের আগে ডিক্রিরচর এলাকার রেজাউল করিম মাষ্টারের একটি ঘর নদীর ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং আশপাশের হাজ্বী ওহাব ফরাজীর বাড়ি থেকে মোখলেসুর রহমানের বাড়ি পর্যন্ত এ গ্রামে প্রায় অর্ধশতাধিক পরিবার ঝুঁিকতে রয়েছে বলেও জানা যায় এলাকাবাসীর মাধ্যমে। আর নতুন করে ধলেশ্বরী নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এ এলাকার বুক মানুষের বুক কাঁপছে।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে জানান, এমনি নদীর পানি বেশি। তারমধ্যে সকালে এবং সন্ধ্যায় প্রচুর লঞ্চ ষ্টিমার এ নদী দিয়ে যাতায়াত করতে থাকে। যার কারনে কৃত্রিম ঢেউয়ের সৃষ্টি হয়ে পার ক্ষতিগ্রস্থ হয়। সবচেয়ে বেশি গ্রীন লাইন নামে একটি ঢাকা-বরিশাল নদীপথের জাহাজের ঢেউ ক্ষতিগ্রস্থ করে গ্রামটির নদীর তীর। বিভিন্ন সময় নিজ উদ্যোগ্যে বাশের আরগারা ও ইটের খোয়ার দিয়ে পার সংস্কারণ করার চেষ্ঠা চালান তারা।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ