২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, দুপুর ১২:২৮

তারাবতে হত্যা মামলায় কথিত স্ত্রীসহ গ্রেফতার ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: রূপগঞ্জে আকাশ (২২) নামে এক যুবককে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগে কথিত স্ত্রীসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত ১৯ এপ্রিল সোমবার রাতে রূপগঞ্জ থানার ওসি (ভারপ্রাপ্ত) জসিম উদ্দীনের নেতৃত্বে হবিগঞ্জ থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। 

গ্রেফতারকৃতরা হলেন হবিগঞ্জ জেলার সদর থানার পোদ্দার বাজার এলাকার সোহেল মিয়ার ছেলে সুমন মিয়া, একই এলাকার জিতু মিয়ার মেয়ে শাবনূর ও আকাশের কথিত স্ত্রী ও মালেক মিয়া মেয়ে সাবিনা আক্তার।

গত ১২ এপ্রিল বিকেলে রূপগঞ্জ উপজেলার তারাব পৌরসভার বরাব বাজার এলাকার একটি আবদ্ধ ঘর থেকে আকাশের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

 রূপগঞ্জ থানার ওসি (ভারপ্রাপ্ত) জসিম উদ্দীন বলেন, নিহত আকাশ হবিগঞ্জ জেলার সদর থানার পোদ্দার বাজার এলাকার হেকিম মিয়া ছেলে। হেকিম মিয়া তার প্রতিবেশী সিদ্দিকের কাছে কিছু টাকা পেত। পাওনা টাকা না দেওয়ায় হেকিম মিয়া বাদী হয়ে সিদ্দিকের নামে হবিগঞ্জে আদালতে মামলা দায়ের করেন। গতমাসে আকাশ মিয়া মিথ্যা তথ্য দিয়ে শাবনূরকে স্ত্রী বানিয়ে ও তার বন্ধু সুমন মিয়া সাবিনা আক্তারকে স্ত্রী বানিয়ে রূপগঞ্জ উপজেলার বরাব এলাকার শুক্কুর আলীর বাড়িতে ভাড়া উঠেন। এরপর থেকে আকাশ-শাবনূর ও সুমন মিয়া- সাবিনা আক্তার স্বামী স্ত্রী পরিচয়ে এখানে বসবাস করে আসছিল। সিদ্দিকের সঙ্গে সুমন মিয়া ও আকাশের কথিত স্ত্রী শাবনূরের খুব ভাল সম্পর্ক ছিল। সিদ্দিক তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রতিশোধ নিতে সুমন ও শাবনূরের সঙ্গে আকাশকে হত্যা করার কনট্রাক্ট করেন।

কন্ট্রাক্ট মতে গত ১১ এপ্রিল রবিবার রাতে আকাশের ঘরে কথিত স্ত্রী শাবনূর ও সুমন মিয়া নুডলসের সঙ্গে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে আকাশকে অজ্ঞান করে ফেলেন। এসময় শাবনূরের ওড়না দিয়ে শাবনূর, সুমন মিয়া ও সাবিনা আক্তার ওড়না গলায় পেচিঁয়ে আকাশকে শ্বাসরোধে হত্যা করে পালিয়ে যায়। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে রূপগঞ্জ থানার ওসি (ভারপ্রাপ্ত) জসিম উদ্দীনের নেতৃত্বে হত্যার রহস্য উদঘাটন করেন। গত সোমবার রাতে হবিগঞ্জে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে কথিত স্ত্রী শাবনূর, সুমন ও সাবিনা আক্তারকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তারা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আকাশকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। গ্রেফতারকৃতদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।    

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ