১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, রাত ৮:১৬

এবারও পিতা-পুত্র সেরা

নবকুমার:

দেশের সেবায় একের পর এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে রূপগঞ্জের গাজী পরিবার। দেশের মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছেন তারা। বিনামূল্যে করোনা ভাইরাস পরীক্ষা করাচ্ছেন তারা। বদলে দিচ্ছেন দেশের অর্থনীতির চাকা। প্রতিষ্ঠা করছেন নতুন নতুন শিল্প প্রতিষ্ঠান। দূর করছেন বেকার সমস্যা। কর দিচ্ছেন নিয়মিত। পাচ্ছেন কাজের স্বীকৃতি। গতকাল বুধবার ২০১৯ /২০ করবছরের সেরা করদাতার নাম প্রকাশ করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। নারায়ণগঞ্জ ১ আসনের সদস্য সদস্য বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক ও তার ছেলে তরুণ শিল্পদ্যোক্তা গাজী গোলাম মর্তুজা পাপ্পা এবারও সেরা করদাতা হয়েছেন। তালিকায় সিনিয়র সিটিজেন ক্যাটাগরিতে সেরাকরদাতা হয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এই মন্ত্রী আর তরুণ ক্যাটাগরিতে সেরা করদাতা হয়েছেন বিসিবির এই পরিচালক । সিনিয়র সিটিজেনদের মধ্যে গোলাম দস্তগীর গাজী শীর্ষ করদাতা।
তরুণ ক্যাটাগরিতে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন গাজী গোলাম মতুর্জা পাপ্পা। নারায়ণগঞ্জ থেকে অন্য কোন জনপ্রতিনিধি এবং তরুণ এই তালিকায় স্থান পায় নাই বলে জানা গেছে । গোলাম মর্তুজা পাপ্পা নারায়ণগঞ্জের তরুণ সমাজের গর্ব। তিনি দ্বিতীয়বারের মতো নারায়ণগঞ্জে এই সুনাম এনে দিয়েছেন যা অন্য কেউ এনে দিতে পারে নাই। রূপগঞ্জে গোলাম মর্তুজা পাপ্পার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। শিক্ষা খেলাধুলা বিনোদন ধর্ম সামাজিক সাংস্কৃতির উন্নয়নে তার ভূমিকা রয়েছে। তাছাড়া দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহযোদ্ধা হিসেবে গোলাম দস্তগীর গাজী কাজ করছে । তার পদচারণায় বদলে গেছে রূপগঞ্জের উন্নয়ন চিত্র। তিনি নারায়ণগঞ্জ ১ আসন থেকে তিন বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।
এদিকে গাজী পরিবারের এই দুই সদস্য সেরা করদাতা হওয়ায় রূপগঞ্জে আনন্দের জোয়ার বইছে।

প্রসঙ্গত গোলাম দস্তগীর গাজীর স্ত্রী হাছিনা গাজী। তিনি তারাব পৌরসভার মেয়র । তার ছোট ছেলে গাজী গোলাম আশরীয়া বাপ্পী । তিনি ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক। গোলাম দস্তগীর গাজীর পুত্রবধূ একজন বুয়েটের শিক্ষক। গাজী পরিবারের প্রত্যেকটা সদস্য বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সংগঠনে দায়িত্ব পালন করছে। একটি সুত্রে জানা গেছে ১০ বার সেরা করদাতা হয়েছে গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক ।
গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক ১৯৪৮ সালের ১৪ আগস্ট বৃহত্তর ঢাকা জেলায় জন্ম গ্রহণ করেন। তার বাবার নাম গোলাম কিবরিয়া গাজী। মায়ের নাম শামসুনেচ্ছা বেগম। তিনি পড়াশুনা শুরু করেন পুরান ঢাকার বিদ্যাপিঠে। মাধ্যমিক পাস করার পর ভর্তি হন নটরডেম কলেজে। পরে ১৯৬৮ সালে জগন্নাথ কলেজ থেকে স্নাতক পাস করেন। ছাত্র থাকা কালীন সময়ে গোলাম দস্তগীর গাজী আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়েন। ৬ দফা আন্দোলন, ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ৭০-এর নিবার্চন, ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ এর সব ঘটনায় জীবনবাজী রেখে লড়াই করেছেন তিনি।
ছাত্র অবস্থায় গোলাম দস্তগীর গাজী বঙ্গবন্ধুর ডাকে মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে। তিনি ২ নং সেক্টরের অধীনে রণাঙ্গণে যুদ্ধ করেছেন। অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে বাংলাদেশ সরকার তাকে বীরপ্রতীক খেতাবে ভূষিত করেছে। তিনি ছিলেন গেরিলা যোদ্ধা। তিনি স্বাধীনতা পুরস্কার ২০২০ গ্রহণ করেছেন। ১৯৭৪ সালে দেশের চাহিদার কথা মাথায় রেখে ও দেশের শিল্প খাতকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে প্লাস্টিক ও রাবারজাত পণ্য উৎপাদনকারী কারখানা স্থাপন করেন। তিনি গাজী গ্রুপের চেয়ারম্যান। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে দেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির উদ্দেশ্যে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।
তিনি ১৯৭৭ সালে অনুষ্ঠিত ঢাকা সিটি করর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচনে কাকরাইল, সিদ্ধেশ্বরী, মালিবাগ, মৌচাক, ইস্কাটন ও মগবাজার এলাকা থেকে কমিশনার নির্বাচিত হন।
তিনি এফবিসিসিআইয়ের সহ সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। ক্রীড়া অঙ্গনে গোলাম দস্তগীর গাজীর বিরাট অবদান রয়েছে। তিনি বিসিবির সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। মানবসেবায় বিশেষ অবদানের জন্য গোলাম দস্তগীর গত বছর মাদার তেরেসা পুরস্কার পেয়েছেন। রাজনৈতিক জীবনের বহু চড়াই-উৎরাই পার করা গোলাম দস্তগীর গাজী ৯০-এর দশক থেকে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ এলাকাবাসীর জন্য কাজ করতে শুরু করেন। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ ১ আসনে গোলাম দস্তগীর গাজী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান। সেই নির্বাচনে তিনি বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী কাজী মনিরুজ্জামান কে প্রায় ৫০ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে সবাইকে অবাক করে দেন। ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি বিজয়ী হন। তার নামে নেই কোন দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ।একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী কাজী মনিরুজ্জামান কে ২ লাখের অধিক ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে টানা তৃতীয় বারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর নারায়ণগঞ্জে থেকে আওয়ামী লীগ সরকার প্রথম মন্ত্রী দিয়েছে। বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী হয়েছেন গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক। রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তিনি । এছাড়া বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন জিটিভি, দৈনিক সারাবাংলার মালিক তিনি।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ