আজ বুধবার, ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

অষ্টমবার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিলেন নীতীশ

অনলাইন ডেস্ক:

মহারাষ্ট্রের উলটপূরাণ বিহারে। অষ্টমবারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিলেন নীতীশ কুমার । বিজেপির হাত ছেড়ে কংগ্রেস, আরজেডি-কে সঙ্গে নিয়ে বিহারে মহাজোটের সরকার গড়লেন নীতীশ কুমার। ১০ আগস্ট দুপুর ২টোয় অষ্টমবারের জন্য বিহারের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন তিনি। নীতীশের ডেপুটি হিসেবে শপথ নিলেন লালু-পুত্র তেজস্বী ।

মঙ্গলবার বিজেপির হাত ছাড়েন নীতীশ কুমার। ফলে বিহারে ক্ষমতায় আসার দু’বছরের মধ্যেই, ক্ষমতা হারায় NDA। বিজেপির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেই, রাবড়ি দেবীর সঙ্গে দেখা করেন নীতীশ কুমার । পাঁচ বছর পর আবার বিহারের শাসন-ভার মহাজোটের হাতে এল। তেজস্বী ও কংগ্রেসকে পাশে রেখেই নতুন মহাজোটের নেতা নির্বাচিত হন নীতীশ কুমার ।

মঙ্গলবারেই তেজস্বী-নীতীশ একসঙ্গে এক গাড়িতে রাজভবনে যান। সরকার গড়ার দাবি পেশ করেন। বিহার বিধানসভায় বৃহত্তম দল আরজেডির ৭৯ জন বিধায়কের সঙ্গে নীতীশ কুমারের দলের ৪৫ জন। কংগ্রেসের ১৯জন , বামেদের ১৬ জন , প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জিতন রাম মাজির দলের ৪ জন ও ১ জন নির্দল বিধায়ক মিলিয়ে ১৬৪ জন বিধায়কের সমর্থনের চিঠি রাজ্যপালের হাতে তুলে দেন নীতীশ কুমার।
বিহার বিধানসভায় ম্যাজিক ফিগার যেখানে ১২২, সেখানে তার চেয়ে অনেক বেশি সংখ্যা মহাজোটের পক্ষে। এই নীতীশ কুমারের শিবির বদল করার ফলেই, ক্ষমতায় আসার দু’বছরের মধ্যে বিহারে ক্ষমতা হারিয়েছিল আরজেডি-কংগ্রেস। এবার সেই নীতীশ কুমারই জোট ভেঙে দেওয়ায়, ফের দু’বছরের মধ্যে ক্ষমতাচ্যুত হল বিজেপির জোট সরকার।

পাটনায় সাজো সাজো রব ছিল গতকাল থেকেই । এদিকে, বিজেপি নীতীশের শপথের দিনটিকে বিশ্বাসঘাতকতা দিবস হিসেবে পালন করছে।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ