আজ শুক্রবার, ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

সমিতির নামে অবৈধ ব্যাংকিং!

আ.শুভ
নারায়ণগঞ্জে বিভিন্ন এলাকায় নিবন্ধন বিহীন সমিতি, সমবায় সমিতি ও মাল্টিপারপাস কো অপারেটিভ নামের প্রতিষ্ঠানের আড়ালে চলছে অবৈধ ব্যাংকিং কার্যক্রম। সমিতির অনুমোদন নিয়ে সদস্যদের বাইরে সাধারণ মানুষকে লোভ দেখিয়ে সঞ্চয় আদায় করার অভিযোগ রয়েছে এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। কেউ কেউ সুযোগ মতো মানুষের আমানত নিয়ে পালিয়েও যাচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে, সমবায় অফিসের অসাধু কর্মচারীদের সহযোগীতায় ২ নম্বরী কারবার করে কতিপয় প্রতিষ্ঠান। ফাঁকি দেয় রাজস্বও।
জেলা সমবায় অধিদপ্তরের সূত্র মতে, নারায়নগঞ্জে কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি রয়েছে ৯ টি। জেলার ৪ উপজেলাসহ নারায়ণগঞ্জ সমবায় অধিদপ্তর ও আরও একটি সংস্থার মোট নিবন্ধন সংখ্যা রয়েছে ২৪৫২ টি। এর মধ্যে জেলা সমবায় অধিদপ্তরের প্রাথমিক সমবায় সমিতি রয়েছে ১৩৪৮ টি। বাকি ১১০৪ টির প্রাথমিক সমিতির নিবন্ধন অন্য একটি সংস্থার। সূত্র মতে, সদর উপজেলায় ৮০৯ টি, বন্দরে ২৩৭ টি, রূপগঞ্জেন ৪৮৯ টি, সোনারগাঁয়ে ৪৯৬ টি ও আড়াইহাজার রয়েছে ৪২১ টি প্রাথমিক নিবন্ধন রয়েছে এই দু’টি সংস্থার।
জানা গেছে, শহরের বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় ও দিগুবাবুর বাজার, টানবাজর, বৌ বাজারসহ আশপাশের বাজারগুলোতে রয়েছে ব্যক্তি নামে বানানো সমিতি ও মাল্টিপারপাস। সমবায় কতিপয় কর্মচারীদের সাথে সখ্য করে সমিতির নামে
ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জে নিবন্ধন ছাড়া সমিতির সংখ্যাও বেশী। ফতুল্লা বাজার, পঞ্চবটি, কাশিপুর, দেওভোগ, পাগলাসহ আশপাশের এলাকায় রয়েছে প্রায় ত্রিশের অধিক সমিতি। সিদ্ধিগঞ্জের শিমরাইল, গোদনাইল, জালকুঁড়ি, ভূঁইগড়, সাইনবোর্ড এলাকায় আছে প্রায় ৫০ টির মতো নিবন্ধন ছাড়া সমিতি। সোনারগাঁ ও বন্দর উপজেলায় শতাধিত নিবন্ধন ছাড়া সমিতি রয়েছে বলে স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে।
রূপগঞ্জ উপজেলায় অর্ধ শতাধিক নিবন্ধন বিহীন সমিতি, মাল্টিপারপাস কো অপারেটিভ ও নামধারী এনজিও কার্যক্রম পরিচালনা করছে। উপজেলার ভুলতা, গোলাকান্দাইল ও রূপগঞ্জ সদর ইউনিয়ন এলাকায় ভূয়া প্রতিষ্ঠানের প্রতারণার প্রবণতা সবচেয়ে বেশি বলে জানা গেছে। সূত্রে জানা গেছে, ভুলতা ও গোলাকান্দাইল এলাকায় রয়েছে ইউসুফ আলী সেন্টার ফার্ণিচার মাট ব্যবসায়ী কল্যাণ সমবায় সমিতি, রূপসী বাংলা, জীবন সংগ্রাম মহিলা শ্রম শক্তি, গোলাকান্দাইল দৈনিক সমবায় সমিতি, প্রমিজ ইসলামী মাল্টিপারপাস কো অপারেটিভ, সাবলীল ক্ষুদ্র সঞ্চয় সমিতি, ছায়া গ্রাম সমবায় সমিতি, সেফটি মাল্টিপারপাস কো অপারেটিভ, আল-আরাফাহ ইসলামী কো-অপারেটিভ, এস বাংলা মাল্টিপারপাস কো অপারেটিভ, আশালয় শ্রমজীবি সমবায় বাৎসরিক সমিতিসহ আরও অনেক। তবে এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অনেকেরই নিবন্ধন নেই বলে জানা গেছে। এছাড়া রূপগঞ্জ সদর ইউনিয়নে বিভিন্ন নামে শ্রমজীবী সমিতি রয়েছে। হিমালয় পূর্বাচল শ্রমজীবী, নবজাগরণ শ্রমজীবী, শ্যামল বাংলা শ্রমজীবী, মায়ের আচল শ্রমজীবীসহ আরও বেশ কয়েকটি সমবায় সমিতি কার্যক্রম চলমান আছে বলে গণমাধ্যমে জানা গেছে। বৈধ নিবন্ধনকৃত প্রতিষ্ঠানের তালিকার বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা শাহীন সুলতানা বলেন, নিবন্ধনের তালিকা প্রস্তুত নেই। সময় লাগবে এই তালিকা প্রস্তুত করতে।
আড়াইহাজার উপজেলাটি গ্রাম অঞ্চল হওয়ায় এই অঞ্চলে ভূয়া সমিতি, মাল্টিপারপাস কো অপারেটিভ’র সংখ্যা বেশি। আড়াইহাজার উপজেলায় সমবায় ও এলডিরি মোট নিবন্ধন আছে ৪২১ টি। এর বাইরে রয়েছে আরও প্রায় শাতাধিক নিবন্ধন বিহীন প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম চলছে বলে জানা গেছে। শাতাধিক নিবন্ধন বিহীন প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে জানতে আড়াইহাজার উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা নাহিদা নাছরিনের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হলে তিনি ফোন ধরেনি।
জেলা উপসহকারী নিবন্ধক মাফরোজা আক্তার জানান, নিবন্ধন বিহীন সমিতি, মাল্টিপারপাস কো অপারেটিভ, নামধারী এনজিও কার্যক্রম পরিচালনা করছে কিনা সেই তথ্য আমাদের কাছে নেই। যদি নিবন্ধন ছাড়া কোথাও কার্যক্রম পরিচালনা করা হয় তাদের তথ্য পেলে তদন্ত করা হবে বলে জানান তিনি।
এ বিষয়ে জেলা সমবায় কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইমরান হাবীব জানান, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হয়। অভিযোগ না পেলে তো কিছু করার নেই। রাজস্ব ফাঁকির জন্য রেজিস্টার লুকানো ও কর্মচারীর আঁতাদের বিষয়ে তিনি জানান, নিবন্ধিত সমিতিগুলোকে তদারকি করা হয় । জনবল সংকট থাকায় কিছু সমস্যা হয় তবে সমিতি ও কর্মচারির বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানান তিনি।
রাজস্ব ফাঁকির বিষয়ে নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সেলিম রেজা জানান,ভূয়া ও অনিবন্ধিত সমিতি ও মাল্টিপারপাসের অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
উল্লেখ্য, সমবায় সমিতি আইন (২০০১) বলা হয়েছে, নিবন্ধন ব্যতীত সমবায় শব্দ ব্যবহার নিষিদ্ধ। (১) এই আইনের অধীন সমবায় সমিতি হিসাবে নিবন্ধিত না হইলে কোন ব্যক্তি, ব্যক্তিসংঘ, সংগঠন বা সমিতি উহার নামের অংশ হিসাবে সমবায় বা কো-অপারেটিভ শব্দ ব্যবহার করিবে না। (২) সমিতির নিবন্ধিত নাম ব্যতীত সমিতির সাইন বোর্ড, বিল বোর্ড বা প্রচারপত্রে অন্য কোন নাম বা শব্দ ব্যবহার করা যাইবে না। (৪) কোন ব্যক্তি এই ধারার কোন বিধান লঙ্ঘন করিলে অনধিক ৭ (সাত) বৎসর কারাদ- বা অন্যূন ১০ (দশ) লক্ষ টাকা অর্থদ- বা উভয়দ-ে দ-নীয় হবে বলে আইনে বলা হয়েছে।
জানা গেছে, ২০১৯ সালের ২৮ আগস্ট ঢাকা জেলা সমবায় দপ্তরের সাবেক চার কর্মকর্তা দি ঢাকা আরবান কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেডের নামে অবৈধ ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনায় প্রতারণা ও জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছেন বলে জানান দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। প্রতিষ্ঠানটি শুধু নারায়ণগঞ্জ শাখা থেকে প্রায় শত কোটি টাকা আত্মসাৎ করার তথ্য পায় দুদক। প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে বাগেরহাট ও নারায়ণগঞ্জে মামলা করা হয় বলে জানা যায়। ১০ ফেব্রুয়ারি রূপগঞ্জের সবুজ বাংলা মাল্টিপারপাস নামের একটি সমিতির বিরুদ্ধে স্থানীয় কৃষকদের কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠে। ওই সমিতির সংশ্লিষ্টদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও টাকা ফেরত দেয়ার দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করে কৃষকরা।
২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর সমবায় সমিতির নামে ২ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়ে যায় দুই নাম ধারী একটি প্রতিষ্ঠান আদর্শ মডার্ন মাল্টিপারপাস সমবায় সমিতির ও মডার্ন মাল্টিপারপাস সমবায় সমিতি। ২০১৬ সালের ২৫ এপ্রিল শহরের কালিরবাজার এলাকার অনুপ্রেরনা ফাইন্যান্স এন্ড কমার্স মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি নামের একটি সমবায় সমিতি গ্রাহকদের কয়েক কোটি টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়ে যায়। মাল্টিপারপাসের এ আত্মসাতের পেছনে জেলা সমবায় কার্যালয়ের এক পরিদর্শকও জড়িত বলেও অভিযোগ ছিলো বলে গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ