আজ বৃহস্পতিবার, ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৩০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সই করেননি সেলিম ওসমান

টি.আই. আরিফ:

জাতীয় পার্টিতে দ্বন্দ্ব থামছে না। সুত্রের খবর দলটির একাংশ আওয়ামী লীগের সাথে মহাজোট করতে ইচ্ছুক। আরেক পক্ষ বিএনপির জোটে যাবে। রওশনপন্থীরা আওয়ামী লীগের মহাজোটে । জিএম কাদেরপন্থীরা বিএনপি জোটে যাবে। তারা বিএনপির সাথে মিটিংও করেছে। সবকিছু বুঝে রওশন এরশাদ নভেম্বরে দলের সম্মেলন ডেকেছে। উদ্দেশ্য কাদেরকে চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণ। তারপর থেকে দলটির নেতারা দুই ভাগ হয়েছে। দেবর- ভাবির দ্বন্দ্বের প্রভাব পড়ছে নারায়ণগঞ্জে। অতীতে এমপি সেলিম ওসমানকে রওশন এরশাদের পক্ষে দেখা গেছে।
এবার জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদকে অপসারণ করার জন্য দলটির অধিকাংশ সংসদ সদস্য সই করে স্পিকারকে একটি চিঠি দিয়েছে। সেই চিঠিতে সই করেননি সেলিম ওসমান। এ খবর জাতীয় পার্টির প্রথম সারের একাধিক নেতা নিশ্চিত করেছেন। আবার কেউ কেউ বলছে মুখে সম্মতি জানিয়েছেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জে জাতীয় পার্টির আরেক এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা। যদিও তিনি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সোনারগাঁ আসন থেকে রওশন এরশাদের মনোনীত প্রার্থী ছিলেন । এরপর থেকে লিয়াকত হোসেন খোকা জিএম কাদেরের অনুগত হিসেবে পরিচিত। জিএম কাদেরকে জাতীয় সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা বানাতে চিঠিতে সই করেছেন তিনি। এ নিয়ে জাতীয় পার্টিতে আবার ভাঙন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। প্রশ্ন উঠছে জাতীয় পার্টি যদি বিএনপির সাথে জোট করে তাহলে আওয়ামী পরিবারের সন্তান হিসেবে পরিচিত সেলিম ওসমান আগামী নির্বাচনে কি করবেন। তিনি কি বিএনপি -জামায়াতের জোটে যাবেন নাকি আওয়ামীলীগে ফিরবেন? লিয়াকত হোসেন খোঁকাকে কি সোনারগাঁয়ের বিএনপি নেতা আজহারুল ইসলাম মান্নানরা আসন ছেড়ে দেবেন?

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ