আজ বৃহস্পতিবার, ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মাকসুদ-মুকুলে ক্ষুব্ধ ভ্রাতৃদ্বয়

সংবাদচর্চা রিপোর্ট :

নির্বাচন থেকে সরে আসতে মাকসুদ হোসেনের প্রতি হঙ্কার দিয়েছিলেন সাংসদ সেলিম ওসমান। তিনি সে হুঙ্কারকে মোটেও পাত্তা দেননি। একই নির্বাচন থেকে সরে আসার অনুরোধ জানিয়েছিলেন আতাউর রহমান মুকুলের প্রতি। তিনিও সেই অনুরোধ রক্ষা করেননি। এবার এই দুজনের প্রতিই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেছেন নারায়ণগঞ্জ (শহর-বন্দর)-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান।
গতকাল বন্দরে প্রয়াত নাসিম ওসমানের দশম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিলে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তাদের প্রতি তীব্র ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন ওই সাংসদ।
বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত নেতা আতাউর রহমান মুকুলকে উদ্দেশ্য করে সেলিম ওসমান বলেন, ‘এক বিএনপি নেতা বঙ্গবন্ধুকে অপমান করে এই এলাকা থেকে নির্বাচন করার কলিজাটা কোথায় পায়? কোথায় আমার আওয়ামী লীগের কর্মীরা? হাতে কি চুড়ি পরেছেন?’
আরেক চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা জাতীয় পার্টির সহসভাপতি মাকসুদ হোসেনকে ইঙ্গিত করে সেলিম ওসমান বলেন, ‘একজন রাজাকার সন্তান, জমি দখলকারী; তার পোস্টার কী করে এলাকায় লাগে, শত শত গাড়ি বের করে? মানুষ অবজেকশন দিলে উনি বলেন, ‘সরি’ আর নির্বাচন কমিশন ওনাকে ছেড়ে দেন। প্রশাসনের লোকজন ঘুমায়ে গেলে হবে না, এগুলা দেখতে হবে।’
একই সভাতে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ শামীম ওসমানও। তিনিও তার বক্তব্যে মুকুল ও মাকসুদ প্রসঙ্গে ক্ষোভ ঝেরেছেন।
তিনি আতাউর রহমান মুকুলকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘এইখানে এসে শুনলাম, কেউ কেউ এমন এমন বক্তব্য দিচ্ছেন আর এমন এমন কথা বলছেন, ওই কথাগুলো যদি আমলে নেই তাহলে আগামীকাল থেকে কেউ মাঠে নামতে পারবেন না। আমি সেলিম ওসমান না, আমরা জানি কী করতে হবে। আমরা চাই সুষ্ঠু ও সুন্দর নির্বাচন হোক। যার কপালে লেখা আছে সে পাশ করবে। কিন্তু কথাবার্তা সীমানার মধ্যে রাখেন।’

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ