৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ভোর ৫:৩৫

মমতার ‘নতুন খেলা’

অনলাইন ডেস্ক:

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বিধানসভায় পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির (পিএসি) চেয়ারম্যান কে হবেন তা নিয়ে তৃণমূল-বিজেপি সংঘাতের মধ্যেই দলের অবস্থান স্পষ্ট করে দিলেন । তিনি জানান, বিজেপির টিকিটে বিধায়ক হলেও মুকুল রায়কে সমর্থন দেবে তৃণমূল।

তবে মুকুল রায়কে পিএসি চেয়ারম্যান পদে বিজেপি মেনে নেবে না বলে জানিয়েছেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু।

রাজ্যের যাবতীয় উন্নয়নমূলক কাজের অডিটের বিষয়ে এই কমিটির চেয়রম্যান বিশেষ ভূমিকা নেন। প্রত্যেক বছর এই কমিটি বিরোধীদের হাতেই ছিল। এবার বিজেপির প্রার্থী হিসেবে বিধায়ক পদে জেতা মুকুল রায়কে সমর্থন জানানোকে মমতার নতুন খেলাও বলা যায়।

মুকুল তৃণমূলে যোগ দিলেও খাতায়কলমে তিনি কৃষ্ণনগর উত্তর আসন থেকে জিতে আসা বিজেপি বিধায়ক। সেই হিসেবে মুকুলকে পিএসি চেয়ারম্যান করা হলে বিধানসভার রেওয়াজ ভাঙা হবে না বলেই দাবি তৃণমূলের।

বৃহস্পতিবার নবান্নে হওয়া সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, মুকুল তো বিজেপি’র সদস্য। কালিম্পং-এর বিধায়ক মানে বিনয় তামাং-এর দল সমর্থন দিয়েছে। আমরাও সমর্থন দেব।

একই সঙ্গে মমতা জানান, বিধানসভার স্পিকার নিয়ম মেনে যা করার করবেন। যদি ভোটাভুটি হয় তাহলে আমরা ভোটে জিতব। নির্বাচনে আসুক না, কার কত শক্তি দেখে নিক। মানুষের ভোটে জিতে এসেছি। এবার সেই ভোটেই যাকে প্রয়োজন হবে তাকে জেতাব।’

চেয়ারম্যান পদের জন্য মনোনয়ন জমা দিয়েছেন বিজেপি কৃষ্ণনগর উত্তরের বিধায়ক তথা অধুনা তৃণমূল কংগ্রেসের সদস্য মুকুল রায়। আর তা নিয়েই এখন বেজায় চটেছে বিজেপি। কারণ মুকুল রায়কে সমর্থন করবে তৃণমূল কংগ্রেস। ভোটাভুটি হলে তাকে জিতিয়ে আনবে তৃণমূল কংগ্রেসই।

বুধবার বিজেপি ওই কমিটির সদস্য হওয়ার জন্য বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীসহ ছয়জনের নামের তালিকা জমা দিয়েছে। সেই তালিকায় রয়েছে বালুরঘাটের বিধায়ক অর্থনীতিবিদ অশোক লাহিড়ির নামও। একই সঙ্গে বিজেপি যে অশোককে পিএসি’র চেয়ারম্যান করতে চায় সেটা জানিয়ে স্পিকারকে একটি চিঠি দিয়েছে।

অন্যদিকে, মুকুলও পিএসি’র সদস্য হওয়ার জন্য বুধবার তার মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। সেই মনোনয়নের প্রস্তাবক ও সমর্থক হিসেবে নাম রয়েছে যথাক্রমে কালিম্পং-এর নির্দল বিধায়ক রুদেন সাদা লেপচা এবং এগরার তৃণমূল বিধায়ক তরুণ জানার। এর ফলে বিধানসভায় মুকুল বনাম অশোক লড়াইয়ের আবহ তৈরি হয়েছে।

তবে মুকুলকে পিএসি চেয়ারম্যান পদে বিজেপি মেনে নেবে না বলে জানিয়েছেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু। তিনি বলেন, দলত্যাগ করা মুকুল রায়ের বিধায়ক পদই বেশি দিন থাকবে না। তার পরে তো পিএসি’র চেয়ারম্যান হওয়ার প্রশ্ন।

তবে বিধানসভার নিয়ম অনুযায়ী, পিএসি’র চেয়ারম্যান মনোনয়নের দায়িত্ব এককভাবে স্পিকারের হাতেই।

উল্লেখ্য, কৃষ্ণনগর উত্তর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে বিজেপির টিকিটে বিধায়ক হয়েছেন মুকুল রায়। তারপর তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরে আসেন তিনি। কিন্তু বিধায়ক পদ ছাড়েননি মুকুলবাবু। উলটে বিধানসভার পিএসি চেয়ারম্যান পদের জন্য মনোনয়ন দাখিল করেছেন তিনি। বিধানসভার রীতি বলে এই পদে বসেন বিরোধী দলের বিধায়করা। মুকুল রায় নথি অনুযায়ী বিরোধী দলের বিধায়ক। সুতরাং আইন ও আইনের ফাঁক দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস এই পদ ধরে রাখবে বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও বিরোধী দলনেতা মামলা থেকে হুঙ্কার সবই ছাড়ছেন।

সূত্র: আনন্দবাজার।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ