১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, রাত ৪:০৬

বোরকার আড়ালে নারায়ণগঞ্জে ইয়াবা পাচার

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি: র‌্যাব-১১ (সিপিএসসি, নারায়ণগঞ্জ) কমলাপুর রেলওয়ে ষ্টেশনে অভিযান চালিয়ে ইয়াবা পাচারকালে দুই মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে । গ্রেফতারকৃতরা হলেন ইফতিয়াজ সাঈদ সরদার ওরফে সায়মন (৪০), আছমা বিবি (৩৬)। মঙ্গলবার ( ১৭ নভেম্বর) দুপুরে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের হেফাজতে থাকা ৩,৫০০ (তিন হাজার ৫ শ) পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। জব্দ করা হয় রেল ভ্রমণের ১টি টিকিট, ইয়াবা ক্রয়-বিক্রয়ের ১টি খাতা, ১টি ট্রলি ব্যাগ , ইয়াবা সেবনের উপকরণসহ ১টি বক্স ।

বুধবার ( ১৮ নভেম্বর) সকালে র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( সিপিএসসি আদমজীনগর) মোঃ জসিম উদ্দীন চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

তিনি জানান, র‌্যাব-১১, (সিপিএসসি, নারায়ণগঞ্জ ) এর বিশেষ অভিযানে গোপন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ঢাকা রেলওয়ে জেলার কমলাপুর রেলওয়ে থানাধীন কমলাপুর রেলওয়ে ষ্টেশন হতে চট্টগ্রাম থেকে আগত সূবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রীবেশে ইয়াবা পাচারের দায়ে ২ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়। প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামী ইফতিয়াজ সাঈদ সরদার ওরফে সায়মন পেশায় একজন মাদক ব্যবসায়ী। সে ও তার সহযোগী আছমা বিবি চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ সি.ডি.এ এলাকায় বসবাস করতো। দীর্ঘ আট বছর যাবত গ্রেফতারকৃত আসামীদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে। গত ২ বছর যাবৎ মাদক ব্যবসায়ী ইফতিয়াজ সাঈদ সরদার @ সায়মন গ্রেফতারকৃত অপর আসামী আছমা বিবির সহায়তায় চট্টগ্রাম এলাকায় মাদক ব্যবসার সিন্ডিকেট গড়ে তোলে। তারা কৌশলে কক্সবাজারের মাদক ডিলারদের নিকট হতে অবৈধ মাদকদ্রব্য (ইয়াবা ট্যাবলেট) সংগ্রহ করে এবং গ্রেফতারকৃত আসামী আছমা বিবি পর্দানশীল নারীর ছদ্মবেশে বোরকার আড়ালে, শরীরের বিভিন্ন জায়গায় এবং ট্রলি ব্যাগে করে মাদকদ্রব্য (ইয়াবা ট্যাবলেট) বহন করে। প্রতিমাসে ৫ থেকে ৬ বার তারা যাত্রী ছদ্মবেশে বাস ও ট্রেনযোগে অভিনব কায়দায় চট্টগ্রাম থেকে ইয়াবা নিয়ে এসে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও এর আশপাশের এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে সরবরাহ ও বিক্রয় করে আসছিল। গ্রেফতারকৃত আসামীরা তারা আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার জন্য পরষ্পর যোগসাজশে দীর্ঘদিন যাবৎ চট্টগ্রাম হতে ইয়াবা পাচার করে নিয়ে এসে নারায়নগঞ্জ, ঢাকা ও এর আশেপাশের এলাকায় বিক্রয় ও সরাবরাহ আসছিল। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ