আজ রবিবার, ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বিএনপির সাথে খেলবে স্বেচ্ছাসেবক লীগ!

স্টাফ রিপোর্টার :

আলোচিত সেই ‘খেলা হবে’ ডায়ালগ এখন মুখের বুলিতে পরিণত হয়েছে। রাজনৈতিক নেতাদের মুখে হরহামেশাই এই ডায়ালগ শোনা যায়। এবার নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদলও সেই ‘বুলি’ আউড়েছেন।

গতকাল বন্দরে স্বেচ্ছাসেবক লীগ আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেন ভিপি বাদল। এসময় তিনি তার বক্তব্যে বিএনপিকে নিয়ে সমালোচনা করেন। পাশাপাশি বিএনপির সাথে স্বেচ্ছাসেবক লীগের খেলা হবে বলেও মন্তব্য করেন ভিপি বাদল।

তিনি বলেন, ‘ওরা বলে হরে কৃষ্ণ হরে রাম শেখ হাসিনার বাবার নাম। আমরা বলি বাংলার ইহুদি, জামাত শিবির বিএনপি। সকল বিএনপিকে বলি না। ওদেরকেই বলছি এটা, যারা এগুলো করে। ওরা যেখানে মিটিং ডাকবে স্বেচ্ছাসেবক লীগও সেখানে সভা ডাকবে। সেখানে খেলা হবে।’

আওয়ামী লীগ নেতা ভিপি বাদলের এই বক্তব্য নিয়ে আলোচনা চলছে বিএনপি অঙ্গণে। অনেকেই বলছেন, সু-সংগঠিত হয়ে উঠা বিএনপির সাথে কুলিয়ে উঠতে পারবে কী আওয়ামী লীগের এই সহযোগি সংগঠনটি? যার জেলা কমিটির কোন হদিসই নেই! আর মহানগর কমিটিও বিলুপ্ত হয়ে আছে মাসের পর মাস। তবে কী কথার কথাই বলেছেন ভিপি বাদল?

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১৯৯৮ সালে আত্মপ্রকাশ ঘটে আওয়ামী লীগের অন্যতম সহযোগি সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক লীগের। কাগজে কলমে সংগঠনটির বয়স এখন ২৫ বছর। এই দীর্ঘ ২৫ বছরে নারায়ণগঞ্জে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি পূর্নাঙ্গ হয়েছে মাত্র একবার। আর আত্মপ্রকাশের পর আজ অব্দি পূর্নাঙ্গই হয়নি নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি। এমনকি এই দীর্ঘ সময়ে মাত্র একবারই আহবায়ক কমিটি হয়েছে জেলা এবং ফতুল্লা থানায়। এরই মাঝে ২০২২ সালের ১৬ জানুয়ারি সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের দিন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সকল কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। অর্থাৎ প্রতিষ্ঠারপর গঠিত হওয়া নারায়ণগঞ্জ জেলা এবং ফতুল্লা থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের একমাত্র আহবায়ক কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে দীর্ঘ ২৪ বছর পর!

বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের ওয়ার্ড কমিটির সম্মেলন চলছে। তবে সদর এবং সিদ্ধিরগঞ্জের ওয়ার্ডগুলোতে সম্মেলন হলেও বন্দরে তা থমকে আছে। এক কথায় বলতে গেলে সাংগঠনিক ভাবে ভঙ্গুর স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

অন্যদিকে, নারায়ণগঞ্জে সংগঠিত হতে শুরু করেছে বিএনপি। বিএনপির প্রতিটি থানা, উপজেলা এবং পৌরসভায় কমিটি হয়েছে। ওয়ার্ড কমিটিগুলোও গঠনের পক্রিয়ায় আছে। তাছাড়া, রাজপথে নিজেদের শক্তিমত্তা দেখিয়ে যাচ্ছে দলটির নেতারা। সাংগঠনিক খেলায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ তো দূরে থাক, মূলদল আওয়ামী লীগের চাইতেও মজবুত আছে বিএনপি।

জানা গেছে, কেন্দ্র ঘোষিত অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে আগামী ১৪ই এপ্রিল নারায়ণগঞ্জে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করতে চায় ঢাকা-বিভাগীয় যুবদল। সেই লক্ষ্যে ফতুল্লার ফাজেলপুর মাঠ নির্ধারণ করে সেখানে প্যান্ডেলের কাজ করছিলেন নারায়ণগঞ্জের যুবদলের নেতারা। অনুমতি না থাকা এবং নিরাপত্তার ঝুকি বিবেচনায় ওই মাঠে আয়োজন করতে নিষেধ করেছে ফতুল্লা থানা পুলিশ। যুবদলের এই কর্মসূচি কোথায় হবে তা এখনো নিশ্চিত নয়। তবে আওয়ামী লীগ নেতা ভিপি বাদলের চ্যালেঞ্জ অনুযায়ী বিএনপি তথা যুবদলের কর্মসূচি যেখানেই হোক, তার পাশেই যদি স্বেচ্ছাসেবক লীগ পাল্টা কর্মসূচি দেয়, তবে সেই রাজনৈতিক খেলায় বিজয় হবে কার? সে উত্তর আপাতত ঝুঁকিপূর্নই বটে!

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ