আজ বুধবার, ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বিএনপির কঠিন পরীক্ষা

টি.আই.আরিফ

ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ,সদর-বন্দর এলাকায় বিএনপির জন্য কঠিন পরীক্ষা। দলটির নেতাদের মধ্যে সেখানে চরম কোন্দল ও গ্রুপিং লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এর মধ্যে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ করতে হবে বিএনপির হাইকমান্ডকে। কাজ তিনটির মধ্যে রয়েছে থানা সম্মেলন, জেলা ও মহানগর বিএনপির সম্মেলন , দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রার্থী চূড়ান্ত। সিদ্বিরগঞ্জ থানা বিএনপির সম্মেলনে হামলার পর থেকে থমকে গেছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি । জেলা বিএনপির সদস্য সচিবকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। ঈদ হলো, এখন জেলা বিএনপির সম্মেলন হওয়ার কথা । গিয়াস -মামুন দ্বন্দ্বে এমপি প্রার্থী ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি ও সেক্রেটারী পদ নিয়ে নতুন মেরুকরণ শুরু হয়েছে। বিএনপির একাংশ গিয়াস -মামুনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে। এ নিয়ে জেলা বিএনপির মধ্যে খেলা শুরু হয়েছে। দলের ভেতরে এবং বাইরে নানা কথা হচ্ছে। হচ্ছে নানা বিশ্লেষণ। জেলা বিএনপির পদ প্রত্যাশীরা ইতোমধ্যে লবিং শুরু করে দিয়েছেন। সুত্রের খবর সদ্য বহিষ্কৃত বিএনপি নেতা এড.তৈমূর আলম খন্দকারও কমিটিতে ফিরতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

অপরদিকে সদর-বন্দর,ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনে গেল সংসদ নির্বাচনে অন্য দলের দুই নেতাকে প্রার্থী করেছিলো বিএনপি। তারা সফল হতে পারেনি। এবার বিএনপি কি সেই ভুল করবে সেই প্রশ্ন এখন তৃণমূলের। এছাড়া মামুন মাহমুদের উপর হামলার পর থেকে বিএনপির কিছু নেতা নিরব, কিছু নেতা পলাতক, অনেকে ঘর হতে বের হচ্ছে না। কেউ কেউ বিদেশ চলে গেছে। কিছু নেতাকে দল থেকে বহিষ্কারের আবেদন করা হয়েছে। কেউ কেউ আর নতুন করে বিতর্কে জড়াতে চাচ্ছে না। এমন অবস্থায় কারা থাকবে নেতৃত্বে? কাদেরকে সামনে নিয়ে এগিয়ে যাবে তৃণমূল নেতাকর্মীরা।

এসব ব্যাপারে বিএনপির এক কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, আমরা সবকিছু পর্যবেক্ষণ করছি। কোন্দল নিরসনে আমরা কাজ করছি। এটা কঠিন কাজ। যারা অপরাধী তাদের বিচার হবে। এটা তারেক রহমানের নির্দেশ। সবাইকে নিয়ে কাজ করতে হবে। বিএনপির কোনো সংকট হবে না।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ