আজ বুধবার, ২৫শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

‘প্রতিদিন আমাদের কাছে ১০ ডিসেম্বর’

টি.আই.আরিফ

নির্বাচনের প্রস্তুতি, সরকার বিরুদ্ধে অপপ্রচার রোধ, বিরোধী দলের ভাংচুর ও নৈরাজ্য প্রতিহত করার লক্ষ্যে মাঠে থাকার ঘোষণা দিয়েছে রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ ,অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। গত ২৪ নভেম্বর মুড়াপাড়ায় পার্টি অফিসে রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক শক্তিবৃদ্ধি , বিএনপির নৈরাজ্য ও ত্রাস বিষয়ে আলোচনা সভায় বক্তারা এ ঘোষণা দেন।
অনুষ্ঠানে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী বলেন, আপনারা রেডি থাকেন, সাহসী হবেন। বিএনপিকে মাঠে নামতে দেওয়া হবে না ফেসবুকে আমাদের উন্নয়ন সমূহ সবাই প্রচার করবেন।

রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শাহজাহান ভুঁইয়া বলেন, বিএনপির অত্যাচার ভুলি নাই। রূপগঞ্জে বিএনপি মাঠে নামতে পারবে না। আমরা প্রত্যেকটা ইউনিয়ন প্রস্তুতি সভা করবো। আমরা যার যার এলাকায় অবস্থান করবো।

তারাব পৌরসভার মেয়র হাছিনা গাজী বলেন, বিএনপি গর্তে পড়ে আছে। সেই গর্ত থেকে বিএনপি আর উঠতে পারবে না। ওরা যা বলছে তা হবে না।
রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গাজী গোলাম মর্তুজা পাপ্পা বলেন, আওয়ামী লীগ পালিয়ে যাওয়ার দল না। জনগণের জানমাল রক্ষার জন্য আমরাও রাজপথে আছি। বিএনপিকে সমাবেশের নামে নৈরাজ্য করতে দেওয়া হবে না। প্রতিদিন আমাদের কাছে ১০ ডিসেম্বর। আগামী ১০ ডিসেম্বর রাজপথ থাকবে আমাদের দখলে। জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখার জন্য আমরা মাঠে নেমেছি। আগামী নির্বাচনে আমরা জয়ী হয়ে ঘরে ফিরবো। রূপগঞ্জের প্রত্যেকটা ওয়ার্ডে আমরা প্রতিরোধ গড়ে তুলবো। বিএনপির জন্য যারা তদবির করেন তাদেরকে বলবো ১০ ডিসেম্বর তাদেরকে ফিরাবেন। কারা বিএনপি করেন ছবি দেখা হবে।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো: আজিজুল হক ভুইয়া আজিজ বলেন, ভুলতা, গোলাকান্দাইলে আমাদের বিশেষ নজর থাকবে।
কাঞ্চন পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম বলেন, কাঞ্চন আওয়ামী লীগের দখলে। প্রতিদিন আমাদের সভা হচ্ছে। কাঞ্চনে বিএনপি মাঠে নামতে পারবে না।
কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা শাহীন মালুম বলেন, দাউদপুরে বসে অনেক ষড়যন্ত্র হয়। আমরা ১০ ডিসেম্বরকে কেন্দ্র করে মাঠে আছি।

সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হারেজ বলেন, অতীতে মাঠে ছিলাম এখনও মাঠে আছি। বিএনপির সাথে আতাঁত চলবে না। রূপগঞ্জ সদর আমাদের দখলে।
ভুলতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আরিফুল ভুঁইয়া, গোলাকান্দাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল হাসান তুহিন বলেন, ভুলতা ,গোলাকান্দাইলে কিছু রাজাকারের বাচ্চা আছে তারা সব সময় আমাদের সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলে। আমরা তা প্রতিহত করবো। আমরা এখন থেকে মাঠে আছি। বিএনপি কিছুই করতে পারবে না। ওরা চোরের মতো রাতে মিছিল করে।

মহিলা বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দা ফেরদৌসী আলম নীলা বলেন, আমরা ভোটের রাজনীতি করি। জনগণ উন্নয়ন দেখে ভোট দেবে। রূপগঞ্জে কোন নৈরাজ্য করতে দেওয়া হবে না।

মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ আলমাছ বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখার জন্য যা যা করা দরকার আমরা তাই করবো। মাননীয় বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী যে নিদেশ দেবে আমরা তা পালন করবো। বিএনপিকে রাজপথে মোকাবেলা করবো।

সাংস্কৃতিক সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল মোমেন বলেন, আওয়ামী লীগ গণমানুষের দল। বিএনপি আন্দোলন করে সরকার পতন করতে পারবে না। রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ যে নির্দেশ দেবে আমরা তা পালন করবো।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ