১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, সকাল ৮:২০

পরীর মামলার আসামি প্রসঙ্গে যা জানালো হারুন

সংবাদচর্চা রিপোর্ট:

নারায়ণগঞ্জের সাবেক এসপি ও বর্তমান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) যুগ্ম পুলিশ কমিশনার হারুন-অর-রশিদ বলেছেন, পরিমণিকে ঢাকা জেলার বোট ক্লাবে নির্যাতন, অত্যাচার ,শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করা হয়েছে। এই অভিযোগে সাভার থানায় একটা মামলা রুজু হয়েছে । সেই মামলার প্রেক্ষিতে সাভার থানা পুলিশ বিষয়টি আমাদের কাছে জানিয়েছে। আসামিদের ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করেছে। উত্তরা ১ নং সেক্টরের ১২ নম্বর একটি বাড়িতে ডিজে পার্টি হয়। আমরা যখন ওই বাসাটায় অভিযান চালিয়েছি। সেখানে এসে আমরা সাভারে এফআইআর ভুক্ত ২ জন আসামিকে গ্রেফতার করেছি, পাশে আরও তিনজন রক্ষিতা ছিলো তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে । মোট ৫ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। সেখানে মাদক পাওয়া গেছে। মাদক আইনে একটি মামলা হবে। বাংলাদেশের একজন বিখ্যাত নায়িকা চলচ্চিত্র জগতের অহংকার পরিমণিকে নির্যাতন করা হয়েছে , আমরা যারা গোয়েন্দার চাকরি করি আমাদের দায়িত্বই হচ্ছে এ নিয়ে তদন্ত করা । তদন্ত করেই আমরা তাদেরকে গ্রেফতার করেছি। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করবো। যদি প্রয়োজন হয় তাদের রিমান্ডে আনবো। যেহেতু আমরা মাদক পেয়েছি।

আমরা পরীমণির সাথে কথা বলবো। প্রত্যেকটা অভিযোগ ক্ষতিয়ে দেখছি। সাভার থানার মামলার প্রেক্ষিতে যার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে তাকেই আমরা গ্রেফতার করেছি। পরিমণির ঘটনায় আজকে যাদের গ্রেফতার করেছি। আমরা ক্ষতিয়ে দেখছি তাদের সাথে আরও কোনো রাঘব বোয়াল আছে কিনা যারা এভাবে রাতের আধারে বিভিন্ন ক্লাবে গিয়ে উঠতি বয়সী মেয়েদেরকে ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরণের অসামাজিক কার্যকলাপ চালায়। আমাদের কমিশনার স্যারের নির্দেশ ঢাকা শহরের গুলশান, বনানীসহ বিভিন্ন এলাকাতে রাত ৮ টা ৯ টার পর কোনো উঠতি বয়সি মেয়েকে ক্লাবে নিয়ে ডিজেপার্টির নামে অনাচার করে তাদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নেবো। আমাদের এখানে একটা মাদকের মামলা আছে। আমরা বোট ক্লাবে যাবো। আরও যারা আসামি আছে তাদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নেবো।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা স্বল্প সময়ে মামুনুল হকক সহ অনেক আলোচিত আসামিকে গ্রেফতার করেছি।

হারুন বলেন, যাদেরকে আমরা (পরীমণির মামলায়) গ্রেফতার করেছি তাদের কাজই মদের ব্যবসা করা। এদের মধ্যে একজন হচ্ছে নাছির উদ্দিন মাহমুদ। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে সেই এই কাজ করে বিভিন্ন ক্লাবে গিয়ে। বিভিন্ন ছোট ছোট মেয়েদের রক্ষিতা রাখে। ক্লাবগুলোতে তার বিরুদ্ধে এসব কাজের আমরা অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগগুলো আমরা তদন্ত করছি। তাদের বিরুদ্ধে মৌখিকভাবে অনেক অভিযোগ পেয়েছি । তারা ক্লাবগুলোতে উঠতি বয়সী মেয়েদের নিয়ে ক্লাবগুলোতে ডিজেপার্টি করে। তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।

সোমবার ১৪ জুন রাজধানীতে এক প্রেস ব্রিফ্রিংয়ে হারুন এসব কথা বলেন। আরও পুড়ুন: পরীমণির মামলায় নাসিরসহ গ্রেপ্তার ৫

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ