আজ রবিবার, ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৪ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

নৌকা নিয়ে ষড়যন্ত্র

সংবাদচর্চা রিপোর্ট:

আওয়ামী লীগ মনোনীত নাসিক মেয়র প্রার্থী ডা: সেলিনা হায়াৎ আইভীকে ঠেকাতে তার প্রতিপক্ষ নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত । তারা নৌকা ডুবাতে নানা চেষ্টা করছে। আইভী দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ পৃথক দুইটি সভার আয়োজন করে। সেই সভায় শামীম ওসমান ও তার সমর্থকদের দেখা যায়নি।

এসব বিষয় নিয়ে বুধবার (৮ ডিসেম্বর) বিকেলে শহরের দুই নম্বর রেলগেইটে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে কথা বলেছেন মেয়র ডাক্তার সেলিনা হায়াত আইভী। তিনি বলেন, আমি সব সময় চেষ্টা করেছি আপনাদের সাথে মিলে মিশে কাজ করার। গতবারও নেত্রী আমাকে নৌকা দিয়েছিলো। এবারও নেত্রী আমাকে নৌকা দিয়েছে। আপনারা নৌকার কথা মেনে নিয়েই আমার জন্য কাজ করছেন। নেত্রীকে আপনারা সমর্থন দিচ্ছেন। যারা এই সুযোগটা নিলো না,আমি মনেকরি তারা দলের প্রতি ,নেত্রীর প্রতি আস্থা প্রকাশ করলেন না। ভবিষ্যতে আমাদের দল যাকেই মনোনীত করবে আমরা তার পক্ষেই থাকবো।
তিনি বলেন , নারায়ণগঞ্জ শহরে আওয়ামী লীগের পদধারী , জেলা আওয়ামীলীগের পদ নিয়ে ,আওয়ামী লীগের মনোনীত সংসদ সদস্য হয়েও তারা লাঙ্গলকে নারায়ণগঞ্জে পাস করাচ্ছে। মধ্যরাতে নাটকীয়ভাবে আওয়ামীলীগের প্রার্থী কাজিম উদ্দিনকে পরাজিত করে সেখানে লাঙ্গলকে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এটা অত্যন্ত লজ্জাকর ব্যাপার আমাদের জন্য । আমরা নারায়ণগঞ্জে এই গুলো আর চাই না। আপনারা জানেন অতীতেও নাজমা রহমানের ভোট ছিনতাই করা হয়েছে। নৌকার ব্যাটল বাক্স ছিনতাই করা হয়েছে, আমরা তার পুনরাবৃত্তি চাই না। আমি পুরানো কথা টেনে আনতাম না, কিন্ত আজকে বলতে বাধ্য হচ্ছি। কারণ যে নৌকা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার হাতে তুলে দিয়েছেন সেই নৌকা নিয়েও ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। দাঙ্গাহাঙ্গার কথা হচ্ছে। নারায়ণগঞ্জকে অস্থির করা প্রক্রিয়া চলছে। প্রার্থী খোজা হচ্ছে। সেই হেফাজত থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরণের প্রার্থী দিয়ে কিভাবে নির্বাচনকে বানচাল করা যায়। জয় তো ঠেকাতে পারবে না। আমি তাদেরকে বলবো দয়া করে একবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কথা চিন্তা করে দেখুন, উনি যে প্রার্থী দিয়েছেন তার বিরোধীতা করবেন ,নাকি নিজেদের অস্তিত্ব বজায় রাখার চিন্তা করবেন। সেটারও সময় এসেছে। আমি আপনাদের মাধ্যমে বলতে চাই বেশি বাড়াবাড়ি কিন্তু ভালো না। সম্প্রতি দেখেছেন আমাদের একজন প্রতিমন্ত্রীর অবস্থা কি হয়েছে। আমরা তা চাই না এখানে নেক্ক্যারজনক কোনো ঘটনা ঘটুক। দলের প্রতি সবসময় আস্থা রেখেছিলাম, আমৃত্যু দলের উপর আস্থা রাখবো। বহু চেষ্টা করেছেন জামায়াত বিএনপি বানানোর জন্য, আমার বাবা জীবনের শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত এই দলের প্রতি নিবেদিত ছিলো। আমাকে যেনো আল্লাহ এই জয় বাংলা বলেই যেনো মৃত্যুবরণ হয়। আমি আপনাদের সকলের সহযোগিতা চাই। আমাদের এমপি গাজী মহোদয়ের সাথে কথা হয়েছে। জেলার প্রত্যেকের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেছি। আওয়ামীলীগ একটি বড় দলে, এই দলে প্রতিযোগিতা থাকবে। আমাদের সবার নেত্রী শেখ হাসিনা। আমরা যেনো ভিটা হারা না হই। আসুন আমরা সবাই এক সাথে নৌকায় উঠি। নৌকার জয়ো গান গাই।

এসময় নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল হাই, নারায়ণগঞ্জ-২ ( আড়াইহাজার) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ নজরুল ইসলাম বাবু, তারাব পৌরসভার মেয়র হাছিনা গাজী, আওয়ামী লীগ জাতীয় পরিষদের সদস্য এড. আনিছুর রহমান দীপু, সাবেক সংসদ সদস্য হোসনে আরা বাবলী, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আব্দুল কাদির, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক সুন্দর আলী, আবু সুফিয়ান, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দা ফেরদৌসী আলম নীলাসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ