আজ সোমবার, ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

‘ নব্য গডফাদারের উত্থান যেন না হয়’

সংবাদচর্চা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের দুইবারের নির্বাচিত মেয়র ও আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী সাধারণ ভোটারদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘জীবনে কখনও চাঁদাবাজি করিনি। আমার কোনো বাহিনী নেই। শহরে শান্তিতে থাকতে চাইলে আইভীকে বেছে নিবেন। কোনো নব্য গডফাদারের উত্থান যেন নারায়ণগঞ্জে না হয়। এটা হতে দিয়েন না। ধমকের সুরে কথা বলবে এমন কাউকে আপনারা ভোট দিয়েন না।’ বুধবার সকালে নগরীর ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে প্রচারণার সময় টানবাজার এলাকায় এক পথসভায় স্থানীয় এলাকাবাসী ও ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্য করে তিনি এসব কথা বলেন।
সাধারণ ব্যবসায়ীদের ভয় না পাওয়ার অনুরোধ জানিয়ে আইভী বলেন, ‘জীবনে আপনাদের কাছ থেকে চাঁদা নেইনি। আমার কোনো বাহিনী আপনাদের কাছে যায় নাই। এই নারায়ণগঞ্জ শহরে কেউ কোনোদিন বলতে পারবে না যে, আমি কারও গায়ে ফুলে টোকা দিয়েছি, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি করেছি। শান্তিতে থাকতে চাইলে আইভীকে বেছে নিবেন। ভয় পাবেন না।’

তিনি আরও বলেন, ‘নতুন করে বলার কিছু নাই। আমি তো ১৮ বছর যাবৎ আপনাদের সাথে, আপনাদের পাশে আছি। আপনাদের সাথে কখনও মিথ্যা কথা বলিনি, মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেইনি, দলবাজি করিনি। দল-মত, জাতি-বর্ণের উর্ধ্বে উঠে কাজ করেছি। সকল ধর্মের মানুষের জন্য সমানভাবে কাজ করেছি।’
তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তোলা হচ্ছে বলেও দাবি করেন সরকারি দলের মেয়র প্রার্থী। তিনি বলেন, ‘র‌্যালিবাগান তুলে দেয়ার যে মিথ্যা কথা বলতেছে, এগুলো সঠিক না। আমার বাবা আপনাদের সাথে রাজনীতি করেছে। নয়ামাটির পেছনে দীর্ঘদিন ছিলাম। আমার স্কুলজীবন এখানে কেটেছে। আমার বাবাও কখনো আপনাদের উচ্ছেদ কিংবা আপনাদের জায়গা নেওয়ার চেষ্টা বা ইচ্ছা করেননি। আমিও করবো না। অথচ আমার বিরুদ্ধে সুপরিকল্পিতভাবে অভিযোগ ছড়ানো হচ্ছে। আমি নাকি উত্তর ও দক্ষিণ র‌্যালিবাগান উচ্ছেদ করে দেবো। এগুলো মিথ্যা প্রচারণা। শেখ হাসিনার সরকার ভূমিহীনদের জায়গার ব্যবস্থা করে দিচ্ছে। সেখানে আমি ওনার মনোনীত প্রার্থী হয়ে আপনাদের উচ্ছেদ করতে পারি না।’
তিনি আরও বলেন, ‘জিমখানা বস্তিতে সরকারিভাবেই পার্ক করার কথা ছিল তাই সেই জায়গা নেওয়া হয়েছে। সেইখানে ৭-৮ জন মাসল ম্যানের (প্রভাবশালী ব্যক্তি) কাছ থেকে ভাড়া নিয়ে লোকজন সেখানে ভাড়া থাকতেন। আপনাদের সমস্যা না থাকলে নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য প্রধানমন্ত্রী যে প্রকল্প রেখেছেন সেগুলো দিয়ে আপনাদের সুব্যবস্থা করে দেবো।’
ভূমিহীনদের জন্য তিনটি দশতলা ভবন নির্মাণ প্রকল্পের কাজ শুরু করেছেন জানিয়ে আইভী বলেন, ‘ঋষিপাড়া বস্তিতে ১০ তলা ভবন করেছি তিনটা। এই ঋষিপাড়া বস্তি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৮ একর জায়গার উপরে। আমি তো কখনই এই বস্তি তুলে দেইনি। উল্টো তাদের থাকার জন্য তিনটা ভবন করে দিয়েছি। নির্বাচন আসলে যারা মিথ্যা কথা বলে তাদের কখনই বরদাস্ত করবেন।’
তিনি আরও বলেন, ‘রাস্তা করেছি, ড্রেন করেছি। রাস্তাঘাট উন্নত হওয়ায় আপনাদের জায়গার দাম বেড়েছে। কী পরিমাণ কাজ পুরো সিটি কর্পোরেশনে হয়েছে তা একবার ঘুরে দেখবেন। এই উন্নয়ন কাজ করা কি আমার অপরাধ হয়েছে? যদি না হয়, তাহলে আমার উপর বিশ্বাস রেখে আপনাদের মূল্যবান ভোটটি দিবেন। আমার কাজগুলো যেন ঠিকমতো করতে পারি সেজন্য ভোট চাইলাম। কারও কান-কথা শুনবেন না।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আদিনাথ বসু, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রানু খন্দকার, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মরিয়ম কল্পনা, নাসিকের ১৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী বাসদ নেতা অসিত বরণ বিশ্বাস, কাউন্সিলর প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা জিএম আরমান, ১৩, ১৪ ও ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী পপি রাণী সরকার প্রমুখ।



স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ