আজ রবিবার, ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৬শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

নবীনরা অপেক্ষায়,সম্মেলন কবে

সংবাদচর্চা রিপোর্ট:

আওয়ামী লীগের ২২তম জাতীয় সম্মেলন নির্ধারিত সময়ে আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আমাদের জাতীয় সম্মেলন আগামী ডিসেম্বরে হওয়ার কথা। জাতীয় সম্মেলনের আগে মহানগর ও জেলার নেতাদেরকে মেয়াদোত্তীর্ণ সকল শাখার কাউন্সিল সম্পন্ন ও পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।
শনিবার (২ এপ্রিল) বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ ও নবায়নের জন্য বই বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, সম্মেলনের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে সদস্য সংগ্রহ ও সদস্য নবায়ন কার্যক্রম। এছাড়া আগামী ২০২৩ সালের ডিসেম্বর বা ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে দেশে জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। জাতীয় সংসদ ও পার্টির জাতীয় সম্মেলন এ দুটি বিষয় গুরুত্বপূর্ণ।

এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীয় নির্বাচন ও জাতীয় সম্মেলনের আগে শুধু মেয়াদোত্তীর্ণ শাখার সম্মেলন নয়, সহযোগী সংগঠন, যাদের মেয়াদ মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে তাদেরও সম্মেলন করতে হবে। অনতিবিলম্বে তারিখ নির্ধারণ করে সম্মেলন অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিতে, তাদেরকেও নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।
এখন দেখার অপেক্ষা নারায়ণগঞ্জে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন কখন হয়। ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবর আব্দুল হাই কে সভাপতি , ভিপি বাদল কে সাধারণ সম্পাদক ,নাসিক মেয়র আইভী কে সিনিয়র সহ সভাপতি করে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন করা হয় । এর পরের বছর ২০১৭ সালে ৭৪ সদস্যের জেলা কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়।

২০১৩ সালের ১১ সেপ্টেম্বর আনোয়ার হোসেনকে সভাপতি ও খোকন সাহাকে সাধারণ সম্পাদক করে মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করা হয়। এর দুই বছর পর ২০১৫ সালে ৭১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়।

দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে তৃণমূল অর্থাৎ জেলা-উপজেলা-থানা-ইউনিয়ন-ওয়ার্ড পর্যায়ের সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটিগুলোকে হালনাগাদ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সুত্রের খবর এবার নারায়ণগঞ্জে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি হবে নবীন-প্রবীনের সমন্বয়ে। এক ঝাক নবীন নেতা কমিটিতে পদের অপেক্ষায়। তারা অধিকাংশ সাবেক ছাত্রলীগ, যুবলীগ নেতা।

কমিটিতে আসতে নেতাকর্মীরা ইতোমধ্যে লবিং শুরু করে দিয়েছে। তারা একাধিক গ্রুপে বিভক্ত রয়েছেন। তাদের মধ্যে দ্বন্দ্বও আছে। নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনও সামনে। তাতে একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে। কাকে কোন জায়গায় রাখবেন তা নির্ভর করছে দলের প্রধান শেখ হাসিনার উপর।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ