আজ বৃহস্পতিবার, ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৩০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

দুই জনই আশাবাদী

টি.আই.আরিফ

আগামী ১৭ অক্টোবর জেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসাহ-উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ অন্য দলগুলোর মাঝে এ নিয়ে কোন উত্তাপ নেই। তবে কারা হচ্ছেন ঐতিহ্যবাহী নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্য তা নিয়ে বিভিন্ন স্থানে আলাপ-আলোচনা ও জল্পনা-কল্পনা,বিশ্লেষন শুরু হয়েছে। এ আলোচনায় আওয়ামী লীগের একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশীর নাম শোনা যাচ্ছে। সংগঠনের সম্ভাব্য প্রার্থীরা এরই মধ্যে দলের অভ্যন্তরে নির্বাচন সংক্রান্ত তৎপরতা শুরু করেছেন। সুত্রের খবর দলীয় মনোনয়নের দৌড়ে দুই সভাপতি বেশি এগিয়ে। তারা হলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদের বর্তমান প্রশাসক মো: আনোয়ার হোসেন, সাবেক জেলা পরিষদের প্রশাসক ও বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবদুল হাই। তারা দুই জনই দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী। দলনেত্রীর উপর তারা আস্থা রাখছেন। নেত্রী যাকে মনোনয়ন দেবেন সেই নির্বাচন করবেন। দায়িত্ব পালনে তারা দুইজনই বেশ সুনাম অর্জন করেছেন। জেলা জুড়ে তাদের যথেষ্ট ভোট রয়েছে। স্থানীয় নেতারা তাদের দুইজনকে সাপোর্ট করছেন।
গেল ৭ সেপ্টেম্বর দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন আনোয়ার হোসেন। এসময় তিনি বলেন, আমার বিশ্বাস, নেত্রী আমাকেই দলীয় মনোয়ন দিবেন। তিনি উন্নয়নের কারিগর জনপ্রতিনিধিদের দলের মনোয়ন দেন।
গতকাল ৮ সেপ্টেম্বর দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আবদুল হাই। তিনি বলেন, আমাকে একবার জেলা পরিষদের প্রশাসক করেছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমি এবার আশাবাদী নেত্রী আমাকে দলীয় মনোনয়ন দেবেন। ভোটারদের ব্যাপক সমর্থন পাচ্ছি। আমি যখন জেলা পরিষদের প্রশাসক ছিলাম নিষ্ঠার সাথে কাজ করেছি। কোনো বিতর্কিত কাজ করিনি।

এছাড়া জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের ভিতরে বাইরে তাদের দুইজনকে নিয়ে নানা আলোচনা হচ্ছে। সবকিছু নির্ভর করছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপর।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ