১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, রাত ১২:৫৩

গ্যাসের পাইপে ২ ছিদ্র

নিজস্ব প্রতিবেদক:

পশ্চিম তল্লার বাইতুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় তিতাস গ্যাস কোম্পানী গ্যাসের পাইপে লিকেজ খুঁজতে মাটি খোঁড়ার কাজ শুরু করেছে। সোমবার দুপুরে মসজিদের উত্তর পাশের মাটি খুঁড়ে একটি পাইপে ২টি লিকেজ পেয়েছে তারা। তবে এ লিকেজ বিষয়ে এখনও কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা তিতাসের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

প্রত্যক্ষদর্শী ও তিতাস গ্যাসের শ্রমিকদের সূত্রে জানাযায়, সকাল ৮টা থেকে ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাত জামে মসজিদের সামনে এবং ডান ও বাম পাশের মাটি খোঁড়ার কাজ শুরু করে। তিন স্থানে প্রায় ৪০ থেকে ৪৫ জন শ্রমিক শাবল, ছেনি, কোদাল, টুকরিসহ অন্যান্য সরঞ্জাম নিয়ে কাজ শুরু করে। এসময় দুপুর ২টায় খোড়াখুড়ির একপর্যায়ে মসজিদের উত্তর পাশে কর্মরত শ্রমিকরা মাটির তিন স্তরের নিচে ৪ ফুট গভীরে তিন ইঞ্চি ব্যাসের একটি পাইপে দুটি লিকেজ দেখতে পান। তবে এ লিকেজ বিষয়ে এখনও কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা তিতাসের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। তারা বলছেন, এটি পানির পাইপও হতে পারে। খোঁড়াখুঁড়ি শেষ হোক। তারপর বিস্তারিত বলা যাবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, মসজিদের পূর্ব দিকের কোণা, সামনের সড়ক ও উত্তর দিকের দুটি স্থানে আরসিসি কেটে তিতাস গ্যাসের পাইপলাইন শনাক্তের চেষ্টা চালছে। এমনকি মসজিদের ভেতরে মেশিন দিয়ে গ্যাস লাইন শনাক্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। কোথায় গ্যাস লাইনে লিকেজ রয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়া মূল পাইপলাইন বের করা হলে সেখান থেকে কোনো শাখা লাইন গেছে কিনা, সেটি জানা যাবে। মসজিদের নিচে পুরোনো কোনো পাইপলাইন আছে কিনা সেটিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এলাকাবাসী জানান, মসজিদ নির্মাণের আগে থেকেই এ এলাকায় গ্যাসের মেইন লাইন ছিল। মসজিদ নির্মাণ করার পর সরকারি রাস্তার মধ্যে কিছু অংশ বাড়িয়ে মসজিদের বারান্দার কাজ করা হয়। সরকারি জায়গার উপর দিয়ে গ্যাস লাইন রয়েছে। মসজিদ নির্মাণের সময় গ্যাস অফিসের লোকজন কোনো বাধা দেয়নি এবং সরকারি জায়গায় মসজিদ নির্মাণেও কোনো ধরনের তোয়াক্কা করা হয়নি। তারপরও মসজিদের পাশের রাস্তায় থাকা গ্যাস লাইনে লিকেজ হলে গ্যাস অফিসে বলার পরও কোনো কর্ণপাত করেনি তারা। বরং মেরামতের জন্য ৫০ হাজার টাকা দাবি করে।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ