১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, রাত ১:১০

কেউ থেমে নেই

সংবাদচর্চা রিপোর্ট:

সোনারগাঁয়ের ৮টি ইউপিতে ভোট গ্রহণ আগামী ২৮ নভেম্বর। জাতীয় পার্টি সমর্থিত সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকার নির্বাচনী এলাকা এটা। ৮ টির মধ্যে ৪ টিতে প্রার্থী দিয়েছে জাতীয় পার্টি।

৪ টি ইউপিতে প্রার্থী না দেওয়া স্থানীয় সাংসদের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। যে চারটিতে প্রার্থী দেয়নি জাতীয় পার্টি সেখানে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হয়েছে। তারা হলেন -পিরোজপুর ইউনিয়নে ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম, কাঁচপুর ইউনিয়নে মোশারফ হোসেন, বারদী ইউনিয়নে লায়ন মাহবুবুল রহমান বাবুল , সনমান্দি ইউনিয়নে জাহিদ হাসান জিন্না।

সুত্রের খবর ওসমান পরিবারও তাদেরকে সাপোর্ট করছে। তাদের সাথে স্থানীয় সাংসদের গভীর সম্পর্ক আছে। তার জন্য হয়তো লাঙ্গল সেদিকে যায়নি। তাছাড়া যারা বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হয়েছেন তারা কেউ গরীব না। তাদের সাথে স্থানীয় সাংসদ বিরোধ করলে হয়তো তার এমপি গিরি ঝুঁকিতে পড়বে বলে মনে করছে স্থানীয়রা। তাছাড়া আতাঁতের বিষয়টা নিয়েও আলোচনা হচ্ছে।

এদিকে যে চারটি ইউপিতে চেয়ারম্যান প্রার্থী দিয়েছেন জাতীয় পার্টি তারা হলেন জামপুরে আশরাফুল ভুঁইয়া মাকছুদ, শম্ভুপুরায় আব্দুর রউফ, সাদিপুরে আবুল হাসেম, নোয়াগাও ইউসুফ দেওয়ান। এ চার ইউপিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন সাদিপুরে আব্দুর রশিদ মোল্লা, শম্ভুপুরায় নাছির উদ্দিন, নোয়াগাঁও আব্দুল বাতেন, জামপুর ইউনিয়নে হুমায়ুন কবীর ভুঁইয়া।

জানা গেছে তাদের সাথে স্থানীয় সাংসদের তেমন মিল নেই। এই চার ইউপিতে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে হামলা- ভাংচুরের অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। ভোটের দিন যত এগিয়ে আসছে টান টান উত্তেজনা বাড়ছে। ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার পক্ষে মাঠে রয়েছে। শেষ পর্যন্ত কি হয় তা সময় বলে দেবে। কোনো প্রার্থী থেকে নেই। সবাই গণসংযোগ করে যাচ্ছে। নৌকার পক্ষে রয়েছে সাবেক এমপি কায়সার হাসনাত, আওয়ামীলীগ নেতা ডাঃ বিরু, মাহফুজুর রহমান কালামসহ অনেকে। অপর দিকে জাতীয় পার্টির লাঙ্গলের পক্ষে রয়েছে এমপি খোকা ও তার সমর্থকরা।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ