আজ শুক্রবার, ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

‘কেউ আঘাত করলে তাকে দেখে রাখবে’

নবকুমার:

রূপগঞ্জে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমন ঘিরে প্রস্তুতি তুঙ্গে। জেগে উঠেছে মহিলা লীগ ও যুব মহিলালীগ নেতাকর্মীরা। ইতোমধ্যে রূপগঞ্জ উপজেলা মহিলা লীগ ও যুব মহিলা লীগ প্রস্তুতি সভা করেছে। গতকাল রূপসী গাজী ভবনে কাঞ্চন পৌরসভা ও ভোলাব ইউনিয়ন যুব মহিলা লীগ নেতাকর্মীদের মতবিনিময় সভা হয়। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার অনুষ্ঠান সফল করার লক্ষ্যে নেত্রীবৃন্দ এই মতবিনিময় সভা করেন। সভায় বক্তব্য রাখেন রূপগঞ্জ উপজেলা মহিলা লীগ সভাপতি ও তারাব পৌরসভার মেয়র হাছিনা গাজী। এসময় মেয়র হাছিনা গাজী মহিলা লীগ ও যুব মহিলা লীগের নেতাকর্মীদের বিভিন্ন দিকনির্দশনা দিয়ে বলেন, ‘আপনাদের কেউ আঘাত করলে তাকে দেখে রাখবেন। আরও নির্বাচন আসবে। তখন দেখা যাবে। এখন কেউ বিশৃঙ্খলা করবেন না। সবাই শেখ হাসিনার শ্লোগান দেবেন। আমরা নেত্রীকে দেখিয়ে দেবো রূপগঞ্জের মাটি শেখ হাসিনার ঘাঁটি, রূপগঞ্জের মাটি আওয়ামী লীগের ঘাঁটি। আমরা আবার ক্ষমতায় যাবো। রূপগঞ্জ উপজেলা মহিলা লীগ ও যুব মহিলা লীগ এখন অনেক শক্তিশালী।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন রূপগঞ্জ উপজেলা যুব মহিলা লীগ সভাপতি ফেরদৌসী আক্তার রিয়া, সাধারণ সম্পাদক সেলিনা আক্তার রিতা। এসময় কাউন্সিলর মিনারা বেগম, চনপাড়া যুব মহিলা লীগ সভাপতি নাজমীন সুলতানাসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

রূপগঞ্জ উপজেলা যুব মহিলা লীগ সভাপতি ফেরদৌসী আক্তার রিয়া বলেন, আওয়ামী লীগকে কিভাবে ধরে রাখবো সেটাই এখন বড় চিন্তা। ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি জামায়াত আমাদের উপর অনেক অত্যাচার- নির্যাতন করেছে ,বাড়ি ঘর ভাংচুর করেছে। শেখ হাসিনা এবং গাজী সাহেব না থাকলে রূপগঞ্জে আমাদের যুব মহিলা লীগের অধপতন হবে। সুতরাং আমরা সবাই গাজী সাহেবের নেতৃত্বে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জনসভা সফল করবো। আগামী ২ ফেব্রুয়ারি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী রূপগঞ্জে আসবে।
নেতার কথমত কর্মী ও জনপ্রতিনিধিরা এলাকায় কাজ করে যাচ্ছে। তাদের এখন প্রধান টার্গেট লোক নিয়ে সবাই প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় যাবে। এতে ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের জনসম্পৃক্ততা বাড়ছে।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ