১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, সকাল ৮:৪৭

কাশিমপুর থেকে নারায়ণগঞ্জে মামুনুল

নিজস্ব প্রতিবেদক: হেফাজতে ইসলামের সাবেক নেতা মামুনুল হককে কাশিমপুর কারাগার থেকে নারায়ণগঞ্জের আদালতে আনা হয়েছে।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে মামুনুলকে নারায়ণগঞ্জ জেলা আদালতের গারদখানায় রাখা হয়। তবে তাকে কোন মামলায় কোন আদালতে তোলা হবে তা এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জানা যায়নি।

তবে মামুনুলকে আদালতে আনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশের পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান।

রিসোর্ট-সঙ্গিনী জান্নাত আরা ঝর্ণার করা ধর্ষণ মামলায় মামুনুল হকের বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের আবেদনের প্রস্তুতি নিয়েছে রাষ্ট্র পক্ষের আইনজীবি ও নারী শিশু আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর এ্যাডভোকেট রকিবুদ্দিন আহমেদ।

তিনি জানান, সোনারগা থানায় দায়েরকৃত জান্নাত আরা ঝন্নার ধষর্ণ মামলায় মামুনুর হকে আদালতে আনা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আজ চার্জ গঠনের আবেদন করা হবে। তাকে নারায়ণগঞ্জের জেলা ও দায়েরা জজ আনিসুর রহমান এর আদালতে তোলা হবে। প্রসঙ্গত, গত ৩ এপ্রিল বিকালে সোনারগাঁওয়ের রয়েল রিসোর্টের ৫০১ নম্বর কক্ষে এক নারীসহ মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করে স্থানীয় জনগণ। পরে মামুনুল হকের সমথকরা রিসোর্টে এবং যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর করে। মামুনুল হককে ছিনিয়ে নিয়ে যায় তার সমর্থকরা। এঘটনায় সোনারগাঁ থানায় মামুনুল হককে আসামি করে একাধিক মামলা হয়েছে। হেফাজতে ইসলামের সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক বিয়ের প্রলোভনে জান্নাত আরা ঝর্ণাকে ধর্ষণ করেছে তার সত্যতা পেয়েছে পুলিশ। মামুনুল হক দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করলেও দায়ের করা মামলায় জান্নাত নিজেকে মামুনুল হকের স্ত্রী বলেননি। জান্নাত আরা ঝর্ণা অভিযোগ করে বলেন, গত ৩ এপ্রিল সোনারগাঁয়ের রয়্যাল রিসোর্টে ঘোরাঘুরির কথা বলে মামুনুল হক আমাকে নিয়ে যান। রিসোর্টের ৫ম তলার ৫০১ নং কক্ষে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে মামুনুল হক আমাকে ধর্ষণ করে। সেখানে অবস্থানকালে কিছু মানুষ আমাদের আটক করে ফেলে। তারা আমাদের পরিচয় জানতে চায়। ভালো উত্তর দিতে না পারায় আমরা স্থানীয় জনগণের রোষানলে পড়ি।

Facebook Notice for EU! You need to login to view and post FB Comments!

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ