আজ বুধবার, ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

আজ মেলা শেষ ,পণ্য কেনাকাটায় প্রাণচাঞ্চল্য

এম এ মোমেনঃ

রূপগঞ্জে বাণিজ্য মেলার শেষ মুর্হূতে পণ্য ছাড় পেয়ে পরিবারের সদস্যরা দলবেধে পছন্দের পণ্য কেনাকাটায় এখনো প্রাণচাঞ্চল্য রয়েছে।ক্রেতা-বিক্রেতা ও দর্শনার্থীদের মধ্য উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা গেছে।করোনা ভাইরাস বৃদ্ধিতে মেলার ব্যবসায়ী ক্রেতা-বিক্রেতা কিংবা প্রবেশ গেইট ইজারাদার মেলার সময়সীমা বৃদ্ধির কোন আবেদন করেনি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও মেলার সময়সীমা বৃদ্ধি করেনি। আজ ৩১ জানুয়ারি সোমবার মাস ব্যাপি বাণিজ্য মেলা শেষ হতে যাচ্ছে। বিকেল ৪টায় সমাপনী অনুষ্ঠানে মেলার সমাপ্তী ঘোষনা করা হবে।গতকাল ৩০ জানুয়ারি রবিবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত ১ কোটি ১৭ লাখ ৭ হাজার ৯৮২ টাকার ভ্যাট আদায় করা হয়েছে। গত ২৯ জানুয়ারি শনিবার বিক্রয় পণ্যর বিপরীতে এ টাকা জমা দেয়া হয়।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় মেলার ওয়ালটন,মিনিস্টার,স্যামসাং,কংকা,ভিশন ও যমুনা ইলেক্টনিক্স স্টলে ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়। বিশেষ ছাড় দেওয়ায় এ সকল স্টলে ক্রেতাদের ভিড় জমে।
নরসিংদী থেকে আসা গৃহবধূ হাজেরা আক্তার বলেন,পণ্য ছাড়ের খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মেলায় এসেছি দাম কম পেয়ে এল ইডি টিভিসহ বেশ কিছু পণ্য ক্রয় করেছি।
আজ এ্যালোমিনিয়ামের স্টল গুলোতে ভিড় আরও বেশি। নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী কিনতে ক্রেতারা ভিড় করছেন।আইক্রীমের স্টল গুলোতে বিক্রর প্রতিনিধিরা নেচেগেয়ে মেলা প্রঙ্গণ জমে তুলেছেন। ক্রেতাদের কেউ কেউ তাদের সঙ্গে নাচ করছেন ।
ডায়মন্ড ওয়াল্ড স্টলে ক্রেতাদের উপস্থিতি কম থাকলেও বিক্রি হচ্ছে প্রচুর।২৫ভাগ ছাড় পেয়ে ক্রেতারাও হিরার পণ্য কিনছেন। খাবার স্টল গুলোতে ক্রেতাদের বসার স্থান নেই।তারা দাড়িয়েই খাবার গ্রহণ করছেন।র্তুকি আলোকসজ্জার স্টলে ক্রেতাদের ভিড়ের কমতিনেই।বিক্রি হচ্ছে প্রচুর ।কার্পেটের স্টল গুলোতেও বিশেষ ছাড় দেওয়া হয়েছে।
ব্লেজার,কোটের স্টল গুলোতে ৫০ ভাগ ছাড়ে ক্রেতা খুশি।কাশমেরী শালের স্টলে দেদারছে তাদের পণ্য বিক্রি হচ্ছে। জুতা,শাড়ী কাপড়,থ্রী পিছ ও প্রসাধনসামগ্রীর স্টলে নারীদের ভিড় লেগেই ছিলো। ফার্নিচারের স্টল গুলোতে আশাতীত বিক্রি হয়েছে।
ঢাকার দলপুর থেকে আসা গৃহবধূ ফরিদা ইয়াসমিন বলেন,আগামী বাণিজ্য মেলার আগেই যোগাযোগ ব্যবস্থার সার্বিক উন্নয়ন করতে হবে। উত্তরা থেকে আসা সরকারি চাকুরীজিবী মনিরা ইয়াসমিন বলেন,মেলার আশপাশের ধূলাবালি র্নিমূল করে শত ভাগ প্রাকৃতিক পরিবেশ প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।
নারায়ণঞ্জের সহিতুন নেছা পাইলট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ আল-আমিন মিয়া বলেন, মেলার সীমানা প্রাচীর ঘেঁষে অবস্থিত ঢাকা বাইপাস সড়কের উপরে সুবিধা জনক স্থানে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে।
রূপগঞ্জ হাজী ইদ্দীসআলী স্কুলের পরিচালক হাসিনা আক্তার বলেন,মেলা প্রাঙ্গণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি কিংবা মোরাল কিংবা ভার্স্কয্য স্থাপন করতে হবে। ওয়ালটনের বিক্রয় প্রতিনিধি রমজান আলী বলেন, হতাশা ও আসংখ্যা মধ্য দিয়ে অবশেষে মেলার সফলতা এসেছে। মি.ব্রাইট খাবার স্টলের মালিক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ খোে কন বলেন, মেলায় আশাতীত বিক্রি হয়েছে আমরা লাভবান।ক্রেতা-বিক্রেতা খুশি। মেলার আয়োজক রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর সচিব ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী বলেন,গত কয়েক দিনের বেচাকেনায় ক্রেতা-বিক্রেতা খুশি।মেলার আয়োজন স্বার্থক।আজ ৩১ জানুয়ারি সোমবার বিকেল ৪টায় বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ চায়না ফ্রেন্ডশীপ এক্সিভিশন সেন্টারের হল রুমে সমাপনী অনুষ্ঠান হবে। সেখানে মেলার সার্বিক কাজের সংশ্লিষ্ঠ মালিকদের মধ্য পনের ইভেন্টে ৪৫ টি সেরা পুরস্কার প্রদান করা হবে। সংক্ষিপ্ত আকারে সরকারের ঘোষিত বিধি নিষেধ মেনে ১০০ জনের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানের সমাপ্তী করা হবে।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ