৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, রাত ৪:২৫

অনলাইন জুয়ার দুই এজেন্ট আড়াইহাজার ও রূপগঞ্জে গ্রেপ্তার

সংবাদচর্চা রিপোর্ট:

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার ও রূপগঞ্জ থেকে অনলাইন জুয়ার দুই এজেন্টকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১। আড়াইহাজার থানার প্রভাকরদী বাজার এলাকায় অনলাইন জুয়ার এজেন্ট মোঃ শহীদুল ইসলাম (৩৪)’কে গ্রেফতার করা হয়।

গত ৬ মে বিকাল সাড়ে ৫ টায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার দখল হতে অনলাইনে অবৈধ জুয়া খেলায় ব্যবহৃত বিভিন্ন মডেলের ৩টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে গ্রেফতারকৃত আসামীর দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার ৭ মে রাত দেড়টায় রূপগঞ্জ থানার সাওঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে অনলাইন জুয়া চক্রের অপর এজেন্ট মোঃ হোসেন গাজী (২৫)’কে গ্রেফতার করা হয় এবং তার হেফাজত হতে অবৈধ জুয়া খেলায় ব্যবহৃত বিভিন্ন মডেলের ৩টি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয় ।

শুক্রবার র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( সিপিএসসি আদমজীনগর) মোঃ জসিম উদ্দীন চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

তিনি জানান, চলমান জনপ্রিয় ক্রিকেট আসর ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ (আইপিএল) এর ক্রিকেট ম্যাচকে কেন্দ্র করে অনলাইনভিত্তিক বিভিন্ন জুয়ার সাইট ব্যবহার করে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার ও রূপগঞ্জ এলাকায় কিছু অনলাইন জুয়ার এজেন্ট উঠতি বয়সী তরুণদের জুয়া খেলায় প্রলুুব্ধ করে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নিয়ে আসছে। অনলাইন জুয়ার এই এজেন্টরা অনলাইনভিত্তিক বিভিন্ন জুয়ার সাইটে নামে-বেনামে আইডি খোলে এবং ক্রিকেটপ্রেমী তরুণদের ক্রিকেট ম্যাচ কেন্দ্রিক বাজিতে অংশগ্রহণে প্ররোচিত করে বিপুল অঙ্কের অর্থ আত্মসাৎ করে। কয়েকজন ভুক্তভোগীর করা অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১ কর্তৃক ঘটনার গভীর অনুসন্ধান করে সত্যতা পেয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানাধীন প্রভাকরদী বাজার ও রূপগঞ্জ থানাধীন সাওঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে উক্ত চক্রের সক্রিয় ২জন জুয়ার এজেন্টদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ ও তাদের নিকট হতে জব্দকৃত মোবাইল পর্যালোচনা করে জানা যায়, তারা সরকারী অনুমোদনবিহীন বিভিন্ন ই-ট্রানজেকশনের সাইটে আইডি খুলে অবৈধভাবে আর্থিক লেনদেন করে। তারা অনলাইন জুয়ার সাইট যেমন ১ গুনন বিট ও বিট ৩৬৫ এ এজেন্ট আইডি নিয়ে সাধারণ ক্রিকেটপ্রেমী তরুণ ও যুবকদের আইডি খুলে দিয়ে অনলাইনে বাজির মাধ্যমে জুয়া খেলায় প্রলুব্ধ করে। ক্রিকেটপ্রেমী তরুণরা তাদের আইডি দিয়ে ক্রিকেট বাজিতে অংশগ্রহণ করে হেরে গেলে এই এজেন্টরা ১৫% হারে অর্থ কমিশন লাভ করে। কমিশন লব্ধ অর্থ তারা সরকারী অনুমোদনহীন ই-ট্রানজেকশনের মাধ্যমে লেনদেন করে অনলাইন জুয়ার প্রসার ঘটিয়ে আসছে। জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায়, রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় এই অনলাইন জুয়ার এজেন্টরা পরষ্পরের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে সংঘবদ্ধ হয়ে অনলাইন জুয়ার বিস্তার ঘটিয়ে আসছে। অনলাইনে অবৈধ জুয়া খেলার এই ধরনের চক্রের বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযান অব্যাহত থাকবে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ