আজ বৃহস্পতিবার, ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

অদ্ভুত এক মোরগ, কণ্ঠে ‘আল্লাহ’ ধ্বনি

সংবাদচর্চা রিপোর্ট:

মোরগের কণ্ঠে আল্লাহু আকবর জিকির শুনে স্থানীয় এলাকাবাসী ভিড় করছে ওই বাড়িতে এমন খবর শোনা গেছে। এমন ঘটনা অবিশ্বাস্য মনে হলেও সত্যি। গত শনিবার ১১ মে বন্দর থানাধীন ২৩নং ওয়ার্ডস্থ স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আসিফ প্রধানের বড় ভাই আনিছুল ইসলামের বাড়িতে সরেজমিনে গিয়ে ঘটনাটি পরিলক্ষিত হয়। এ অলৌকিক ঘটনায় ওই বাড়িতে ভিড় করছে কৌতুহলি মানুষ।
এলাকাবাসীর দাবি, এটি সৃষ্টিকর্তার বিশেষ কুদরতি খেলা। এই মোরগটি ক্রয় করার পরই জবাই করার সময় আল্লহর নাম জিকির করছে। তাই যে মোড়কটি ক্রয় করেছেন তিনি যেন আল্লাহর নামেই এটি লালন পালন করেন।
জানা যায়, বন্দরের ২৩নং ওয়ার্ডে স্বল্পেরচক এলাকার ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আসিফ প্রধানের বড় ভাই আনিছুল ইসলাম গত ৯ মে দুপুরে একটি মোরগ ক্রয় করে রান্না করে পরিবার নিয়ে খাওয়ার জন্য। জবাই করার জন্য তার স্ত্রী প্রস্তুতিও নিচ্ছিলেন। এমন সময় ওই মোড়কের কন্ঠে আল্লাহর জিকির শুনে হতভম্ভ হন আনিছুল ও তার স্ত্রী। এ সময় তার স্ত্রী বারন করেন মুরগটি জবাই করার জন্য। তার স্বামী আনিছুলকে নিষেধ করে বলেন যে মুরগটি আল্লাহর নাম জিকির করছে তাকে গলায় ছুড়ি বসানো ঠিক হবে না। তখন তারা মুরগটি স্বযত্নে লালন পালনের জন্য তার ছোট ভাই আসিফ প্রধানের হেফাজতে দিয়ে দেন। আর এমন সংবাদটি জানাজনি হতেই তার বাড়িতে ভিড় করেন উৎসুক জনতা।
এ ব্যাপারে আসিফ প্রধান জানান, গত পরশুদিন আমার বড় ভাই আনিছুল মোরগটি রাস্তায় এক মুরগীওয়ালার কাছ থেকে ৬শ টাকা দিয়ে খাওয়ার উদ্দেশ্যে তার কাছ থেকে কিনে নেন। কেনার পর মোরগটিকে জবাই করতে নেন, ঠিক তখনই উচ্চস্বরে আল্লাহ আল্লাহ বলে ডাকতে থাকে। অবাক হয়ে মোরগটি আমার ভাই ও ভাবী জবাই না করে আল্লাহর নামে লালন পালনের জন্য আমার ফার্মবাড়িতে দিয়ে দেন। ‘এটি আল্লাহ আমার ভাইয়ের ওছিলায় আমার হেফাজতে দিয়েছেন। এখন থেকে আমি এই মোরগটি যত্ন করে লালন পালন করব।’
এদিকে স্বল্পেরচক বায়তুল নুর জামে মসজিদের ঈমাম ও খতিব হাফেজ মাওলানা আবু সাঈদ বলেন, আল্লাহর নিয়ামক হিসেবে মোরগটি কণ্ঠে বারবার আল্লাহর নাম নিচ্ছে। সেহেতু এটা লালন পালন করাই সওয়াবের কাজ হবে।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ