Home / দেশের খবর / পুরস্কার পেয়েছেন ! প্রতারক চক্রের খপ্পরে সিম গ্রাহকরা

পুরস্কার পেয়েছেন ! প্রতারক চক্রের খপ্পরে সিম গ্রাহকরা

 

নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ আপনি আমাদের কোম্পানির গ্রাহক হিসেবে এ বছরের সর্বোচ্ছ পুরস্কার বিজয়ী হয়েছেন। আপনি নগদ টাকা নিতে পারেন ও গাড়ি বা সম মূল্যের ফ্ল্যাট নিতে পারেন। সে জন্য আপনাকে রেজিষ্ট্রেশন করতে বিকাশের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে হবে। আপনার নামে রেজিষ্ট্রেশন হয়ে যাওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যে আপনার পুরস্কার পেয়ে যাবেন। তবে পুরস্কার পাওয়ার আগ পর্যন্ত ও রেজিষ্ট্রেশন ফি দেয়ার বিষয়টা গোপন রাখার অনুরোধ রইল। নয়ত কোন হেকার আপনার পুরস্কার নিয়ে যাবে। মোবাইলে ফোন কল দিয়ে ওই চক্রের সদস্যরা এমন কথাই বলে তাদের খপ্পরে ফেলান বলে ভোক্তভোগীরা জানান। বিভিন্ন নাম্বার থেকে ফোন দিয়ে সাধারন মানুষকে ধোঁকা দিয়ে বোকা বানিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা। এ খপ্পরে পড়ে নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছেন বহু পরিবার। অফার পুরস্কার পেয়েছেন বলে পতারক চক্র সক্রিয় রয়েছেন। এ প্রতরণার ফাঁদে অনেকেই পড়ে অর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছেন।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রতিনিয়তই ঘটছে এমন ঘটনা। অনেকেই এমন ফোন কল এড়িয়ে যাচ্ছেন। আবার অনেকেই প্রতারক চক্রের এমন লোভনিয় অফারে ফাঁদে পড়ছেন। সূত্র জানায়, লোভনিয় অফারের ফোন কলগুলো আসে সাধারণত বাংলালিংক, গ্রামীন, রবি নাম্বার থেকে। চক্রের সদস্যরা যে নাম্বারে ফোন কল করেন, সে নাম্বার গুলো সব সময় সচল পাওয়া যায় না। আবার অনেক সময় সচল পাওয়া গেলেও রিসিভ করেন না। রেজিষ্ট্রেশন বাবদ টাকা বিকাশে পাঠাতে বলে সে নাম্বার গুলো ফোন কল নাম্বারের সাথে মিল থাকে না।

সাম্প্রতিক সময় নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার তারাব পৌরসভার নোয়াগাঁও এলাকার কলেজ পড়–য়া আবু সালামের মেয়ে পুরস্কার পেয়েছেন এমন ফোন কল পেয়ে নগদ টাকা সঙ্গে না আনতে পারলেও এলাকার একটি বিকাশের দোকান থেকে ৫৫ হাজার ৫০০টাকা একাদিক বিকাশ নাম্বারে পাঠান। টাকা পাঠানোর কয়েক মিনিট পরে সে নাম্বার গুলোতে সে আর যোগাযোগ করতে পারেন না। ভোক্তভোগি পরিবারের লোকজন জানান, বিকাশ ব্যবসায়ী দোকনী যদি আমার মেয়ের কাছ থেকে নগদ টাকা ও আইডি কার্ড চাইত তবে আমার মেয়ে এ প্রতারণার শিকার হতো না।

জামাল এন্ড কোম্পানী-৩, মুড়াপাড়া, রূপগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ শাখার টেরিটরী অফিসার আল-আমিন জানান, বিকাশের টাকা লেন-দেন ৫ হাজার টাকা হলেই প্রেরক ও প্রাপকের জাতীয় পরিচয় পত্র দরকার হয় কোন বিকাশ এজেন্টের কাছে আসলে। তিনি দাবি করে বলেন, আমাদের বাংলালিংকের কোন এজেন্ট অনিয়মে লেনদেন করেন না। এ বিষয়ে আমাদের মনিটরিং রয়েছে। বিচ্ছিন্ন কোন ঘটনা ঘটলে অভিযোগ পেলে আমরা ব্যবস্থা নিব।

রূপগঞ্জ থানা সূত্র জানান, প্রতারণার ফাঁদে পড়েছেন এমন ভোক্তভোগী পরিবার লিখিত অভিযোগ মাঝে মধ্যে পাই। অভিযোগ পেলেই আমরা বিষয়টি নিয়ে কাজ করি। প্রতারক চক্রের লোকজন বিভিন্ন কৌশলে তাদের সিম ব্যবহার করে। তাদের অবস্থান নিশ্চিত করাটা কঠিন হয়ে পরে বলে তাদের ধরতে সময় লেগে যায়।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *