বিভেদ ভুলে একাট্টা বিএনপি

53

বিশেষ প্রতিবেদক
খাদের কিনারায় আটকে এবার ঐক্যবদ্ধ হতে বাধ্য হয়েছে বিএনপি পন্থী আইনজীবীরা। অথচ সারাবছর নিজেদের ভেতর ভিন্ন বলয়ের বিরুদ্ধে কটুক্তি, পরনিন্দাচর্চা, অপবাদ থেকে মারামারি করারও তকমা রয়েছে। কিন্তু ১৬ই ডিসেম্বর পুলিশ পেটানোর মামলার পর থেকেই কাটতে শুরু করে বিভেদের কালো ছায়া। যার ধারাবাহিকতায় আইনজীবী সমিতি নির্বাচনেও বিভেদ ভুলে কাঁধে কাঁধ রেখে দলকে এগিয়ে নিয়েছেন বিএনপি পন্থী আইনজীবীরা।

৯ জানুয়ারি এজিএমে ইসি কমিশনারের নাম ঘোষণার পর থেকে আন্দোলনে নামে বিএনপি পন্থী আইনজীবীরা। তৈমূর আলম খন্দকার ও সাখাওয়াত হোসেন খান বলয়ের নেতাকর্মীরা একত্রিত হয়ে কাজ করেন দল ও আইনজীবীদের পক্ষে। তাদের এমন অপূর্ব মিলন দেখে বোঝাই যায়নি কিছুদিন পূর্বেও তারা মারপিট করে আলোচনায় এসেছিলেন গণমাধ্যমে। বর্তমানে উভয় বলয়ের আইনজীবীরা সমন্বয় করে যে প্যানেল দিয়েছে তাতে বিএনপির সকল সক্রিয় নেতাকর্মীরা এতে সমর্থন জানিয়েছেন।

ঠিক একই চিত্র লক্ষ করা গিয়েছিলো সাখাওয়াত হোসেন খান যখন আসামী হয়ে আদালতের কাঠগড়ায় উঠেন। সেসময় তার পক্ষে আইনজীবী হিসেবে দাঁড়িয়ে যান এড. বারী ভুঁইয়া। রিমান্ড আবেদন থেকে শুরু জামিন আবেদন পর্যন্ত সাখাওয়াতের পক্ষে আইনি লড়াই চালান তিনি। তার পরেই সাখাওয়াত জামিনে বেরিয়ে এটিএম কামাল ও মামুন মাহমুদের পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করেন। দলীয় কমিটিকে কেন্দ্র করে দূরত্ব তৈরী হলেও তা ধীরে ধীরে ম্রিয়ম্রান করে আসে।

রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঝে বিভাজন থাকলেও তারা বিপদে একে অপরের পাশে যেভাবে দাঁড়িয়েছেন তা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। এমন কাজের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পারলে আগামীদিনে দলের যেকোন কর্মী নিদ্বিধায় দলের পক্ষে ত্যাগ স্বীকার করতে সক্ষম হবে। আর সে কারনে নেতৃবৃন্দের সহনশীল আচরন ও আদর্শীক ভূমিকা রাখা প্রয়োজন।

এসএএইচ/এসএমআর

For Advertisement: 01921400867/ 01981617415

সংবাদচর্চায় প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, ছবি, ভিডিও, তথ্য কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।