১৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, সকাল ৬:২৮

তল্লায় মসজিদ বিস্ফোরণে ১১ জনের মৃত্যু

সংবাদচর্চা অনলাইনঃ

নারায়ণগঞ্জের সদর উপজেলার পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাত জামে মসজিদে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনায় এ পর্যন্ত শিশুসহ ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়েছে।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিটিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন ,
গুরুতর দগ্ধ আরও ২৬ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি তাদের জন্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দগ্ধদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনি গভীর শোকও প্রকাশ করেছেন। রাত ১২ টার দিকে ৭ বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়। এরপর বাকিদের গভীর রাতে ও সকালে মৃত্যু হয়।

মৃত ব্যক্তিরা হলেন, রিফাত, জুবায়ের, হুমায়ন কবির, মুস্তাফা কামাল, ইব্রাহিম, সাব্বির, দেলোয়ার হোসেন, জুয়েল, জামাল, জুনায়েদ এবং কুদ্দুস বেপারী।

শুক্রবার ৪ সেপ্টেম্বর রাতে এশার নামাজ চলাকালীন অবস্থায় এ ভয়াবহ ঘটনা ঘটে। এতে ৫০ জনেরও বেশি মুসুল্লি দগ্ধ হয়েছেন। আহত প্রত্যেকের অবস্থা এখন পর্যন্ত আশঙ্কাজনক রয়েছে।

প্রত্যেক্ষদর্শীরা জানায় , নামাজ চলাকালীন সময় হঠাৎ করেই বিকট শব্দ হতে শুরু করে। আশপাশের লোকজন ছুটাছুটি করে রাস্তায় জমে থাকা পানিতে ঝাপিয়ে পরে।

খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে উপস্থিত হন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন৷ পরে ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছেন জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম ও জেলা প্রশাসকজ মো. জসিম উদ্দিন।

এদিকে বিস্ফোরণের কারণ উল্লেখ করে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের পরিচালক লে. কর্ণেল জিল্লুর রহমান বলেন, মসজিদের মেঝের নিচ থেকে তিতাস গ্যাসের একটি লাইন গিয়েছে৷ সেখান থেকে গ্যাস জমে এই বিস্ফোরণ ঘটে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে বিস্ফোরণের সঠিক কারণ জানতে ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে । আগামী ১০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিবেন বলে জানান তিনি ৷

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ