১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, রাত ৮:১৭

ঘনিষ্টরাই করছে খুন!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

তুচ্ছ ঘটনা, পূর্ব শত্রুতা, মারামরিসহ নানা ঘটনায় জেলায় একের পর এক হত্যা কান্ডের ঘটনা ঘটছে। বেশির ভাগ ঘটনায় জড়িত রয়েছে পরিচিত ব্যক্তি, সহকর্মী, সহযোগী কিংবা বন্ধুরা। পুলিশ বলছে, পরিকল্পিত ভাবে হত্যাকান্ড সংগঠিত হয়েছে। মানবাধিকার কর্মীদের দাবি, অভিভাকদের আরও শক্ত হতে হবে। একই সাথে পুলিশ কঠোর না হলে খুনের ঘটনা কমবে না।

জানা গেছে, আড়াইহাজারের গোপালদী বাজারের বড় জামে মসজিদ মার্কেটের ছাদ থেকে সাইফুল ইসলামের এক যুবকের গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের বোন লিজা আক্তার বাদী হয়ে সহকর্মী ও বন্ধু শুভ রায়কে আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। বৃহস্পতিবার দুপুরে এই হত্যা মামলার একমাত্র আসামি শুভ রায় (২০) হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে।

এদিকে বন্দরের ইস্পাহানী ঘাট এলাকায় কিশোর গ্যাংয়ের হামলা থেকে বাঁচতে নদীতে ঝাঁপ দেয় দুই কিশোর। সাত ঘন্টা নিখোঁজের পর রাত সাড়ে ১১টায় দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করে স্থানীয়রা। নিহত দুই ছাত্র মিহাদ (১৮) ও জিসান (১৫৯। এ ঘটনায় জিসানের বাবা কাজিম উদ্দিন বাদী হয়ে বিশ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। মামলায় ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা সাতজনকে আসামি করে মোট ২১ জনকে আসামি করা হয়। পুলিশ গ্রেপ্তার ৬ জন কে গ্রেপ্তার করেছে।

এর আগে শহরের মাসদাইরে কেন্দ্রীয় ঈদগাহ সংলগ্ন পুকুর থেকে সিএনজি অটো রিকশা থেকে আবদুল্লাহ (২২) নামের যুবকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সে মাসদাইর এলাকার আবু হানিফের ছেলে। আবদুল্লাহর বাবা আবু হানিফ জানান, ৪ আগস্ট আব্দুল্লাহ তার বন্ধুদের সাথে জগড় করায় তাকে বকাঝকা করে তার বাবা। পরে সে ঘর থেকে বের হয়ে যায়। বুধবার ভোর ৩টা হতে তার মোবাইল বন্ধ পাই। পর দিন দুপুরে খবর পান ছেলের লাশ পাওয়া গেছে।

অপরদিকে সিদ্ধিরগঞ্জে পাঠানটুলী বাসস্ট্যান্ড মোড়ে যুবলীগ নেতা শাহজাহানের বাড়ির সামনে শুভ নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ঈদের দিন রাতে পাঠানটুলিতে এলাকাতে কয়েকজন রাম দা ও চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে তাকে হত্যা করে। স্থানীয়রা বলছে, হত্যাকারীরা শুভ’র পূর্বপরিচিত ও বন্ধ ছিলো। শুভ হাজীগঞ্জ এলাকার বশির মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করে নিহতের স্বজন। খুনের সাথে জড়িত সন্দেহে ৩ জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। পরে আরও আসামী আত্মসর্ম্পন করে।

রূপগঞ্জে রিফাত হাসান (২২) নামে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক তরুণকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে খুনের ঘটনা ঘটে। নিহত রিফাত দৈনিক ভোরের কাগজ পত্রিকার রূপগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি নজরুল ইসলামের ছেলে। সাংবাদিক নজরুল ইসলাম জানান, ৩১ আগস্ট রাতে তার ছেলেকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় তার বন্ধু। ওই রাতে তারা মারধর করে তারাব পৌরসভার বরপা সুতালড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে ফেলে রাখে। পরদিন সকালে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় রিফাত হাসান। সে সোহরাওয়ার্দী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য বিভাগের অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিল। এ ঘটনায় মামলা করেন নিহতের বাবা।

মানবাধিকার কর্মীদের দাবি, বাসা থেকে ডেকে নিয়ে খুন করছে বন্ধু, সহযোগী ও সহকর্মী। এ ধরনের ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে হলে অভিবাবকদের আরও শক্ত হতে হবে। একই সাথে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে হলে পুলিশ আরও কঠোর হতে হবে নয়তো খুনের ঘটনা কমবে না বলে জানান তারা।

স্পন্সরেড আর্টিকেলঃ